আল্লাহ তা’আলার একত্ববাদের গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ইসলামের সর্বপ্রথম বিষয় হল আকাইদ। ইসলামের মূল বিষয় গুলোর উপর মনেপ্রাণে বিশ্বাস করাকেই আকাইদ বলা হয়। অর্থাৎ তাওহীদ, রিসালাত, আখিরাত, আসমানী কিতাব, ফেরেশতা ইত্যাদির উপর বিশ্বাস স্থাপন করার নাম আকাইদ।

আকাইদের সবগুলো বিষয়ের উপর বিশ্বাস স্থাপন করলে মানুষ ইসলামে প্রবেশ করতে পারে। যে এসব বিষয়ে বিশ্বাস করে, সে-ই ইসলামের প্রবেশকারী বা মুসলমান।

সুবিশাল আকাশ-মহাকাশ, চন্দ্র-সূর্য, গ্রহ-নক্ষত্র, দিন রাতের পরিবর্তন, রোদ-বৃষ্টি, জীবজন্তুর জন্ম-মৃত্যু ইত্যাদি মহাপরাক্রমশালী আল্লাহ তাআলার একত্ববাদের অকাট্য নিদর্শন। এগুলোর মাধ্যমে আমরা আল্লাহ তাআলার ক্ষমতা অনুভব করতে পারি। সামান্য একটা সুই থেকে শুরু করে রকেট তৈরি করতে হয় একজন ইঞ্জিনিয়ার, মেকানিক রয়েছে।

তাহলে এই বিশাল সৃষ্টিজগৎ নিয়ন্ত্রণকারী একজন নেই সে কথা আপনি চিন্তা করেন কিভাবে। নিশ্চয়ই একজন সৃষ্টিকর্তার রয়েছে, তার ইশারায় সৃষ্টিজগতের সবকিছু এতো সুন্দর ভাবে পরিচালিত হচ্ছে। তার অস্তিত্ব অস্বীকার করার কোনো আপায় নেই। তিনি এক ও অদ্বিতীয়।

তাওহীদ বা একত্ববাদ কি?

আমাদের চারপাশের নানা নিদর্শন উল্লেখসহ কালিমা তায়্যিবা ও কালিমা শাহাদাতের আলোকে আল্লাহ তায়ালার একত্ববাদের উপর একটি প্রতিবেদন নিচে তৈরি করা হলঃ

আল্লাহ এক বা অদ্বিতীয়, তিনি কারো মুখাপেক্ষী হন এবং আমরা সকলেই আল্লাহর মুখাপেক্ষী। আল্লাহ কাউকে জন্ম দেননি এবং তাকেও কেউ জন্ম দেয়নি। আল্লাহর সমান বা সমকক্ষ কেউ নেই।

তাওহিদ আরবি শব্দ। বাংলা ভাষায় একে বলা হয় একত্ববাদ। আল্লাহ তায়ালাকে এক ও অদ্বিতীয় সত্তা হিসেবে বিশ্বাস করাকে তাওহিদ বা একত্ববাদ বলা হয়। অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালাই একমাত্র সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা, রিজিকদাতা। তিনি ব্যতীত ইবাদতের যোগ্য আর কেউ নেই। তিনিই হলেন একমাত্র ইলাহ।

আল্লাহ তায়ালার প্রতি এরূপ বিশ্বাসই হলো তাওহিদ।

আমাদের চারপাশে সুন্দর সুন্দর ফুল, ফল, গাছপালা, তরুলতা, পশুপাখি ইত্যাদি রয়েছে। এছাড়া রয়েছে নদী-নালা, পাহাড়-পর্বত, বন-জঙ্গল, সাগর-মহাসাগর ইত্যাদি। আর পৃথিবীর এই সকল কিছুই চলে একাত্ন আল্লাহ তায়ালার ইশারায় এবং এগুলো একজন মুসলমান হিসেবে আমার বিশ্বাস করতে হবে। আর যে আল্লাহ তায়ালার এই সুন্দর সৃষ্টিকে অস্বিকার করবে বুঝতে হবে তার মধ্যে ঘাটতি আছে।

একত্ববাদের পক্ষে যুক্তি

আল্লাহ তায়ালার প্রতিটা সৃষ্টিই বড়ই আদ্ভুত। কারন মানুষের মধ্যে সকল অংশ রয়েছে একরম কিন্তু তাদের দেখতে অন্যরকম, একেকটি পশু পাখির ডাক ভিন্ন ভিন্ন, প্রতিটা ফলমূলের স্বাদ ভিন্ন ভিন্ন, সূর্য পূর্ব দিকে উঠে এবং পশ্চিম দিকে ডুবে যায়, দিন থেকে রাত হয় এবং রাত থেকে দিন ইত্যাদি আল্লাহ তায়ালার তৈরি এমন হাজার হাজার নিদর্ষন রয়েছে। আল্লাহ তায়ালা একক সত্তা এবং তার প্রতিটা সৃষ্টিই সত্যিই অসম্ভব সুন্দর।

মনে করেন পৃথিবীতে একের অধিক স্রষ্টা বা খোদা আছে। যদি এমন হতো তাহলে কি হতো? দুজনের দু’রকম মত থাকতো, দুজন তার সৃষ্টিকে দুইভাবে পরিচালনার চেষ্টা করতো। এর ফলে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হতো। দেখা যেত একজন জয়ী হলে অন্যজন পরাজিত হতো। কিন্তু স্রষ্টার কি পরাজয় আছে! তিনি তো স্রষ্টা তিনি তো সবসময় জয়ী হবেন এটাই স্বাভাবিক।

সুতরাং যে কোন সাধারণ মানুষ যার মধ্যে ন্যূনতম জ্ঞান বুদ্ধি আছে তার এটা রিয়েলাইজ করতে কষ্ট হওয়ার কথা নয় যে সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা একজনই। তিনি হলেন মহান আল্লাহ তা’আলা। আমাদের সকল প্রসংশাম, ইবাদত সবকিছু আল্লাহর জন্য, তাঁর কোন শরিক নাই বা তার সাথে কারোর তুলনা নেই। এই মহাবিশ্বের সকল সৃষ্টি তার কাছে মাথা নত করতে বাধ্য। মহান আল্লাহ তাআলার অফুরন্ত নেয়ামতের কারণে সৃষ্টি জগতের সব কিছু বেঁচে আছে।

একত্ববাদের প্রকারভেদ

আল্লাহতালা এক, অদ্বিতীয় তাহার কোনো শরিক নেই। তিনি ছাড়া এই মহাবিশ্ব কোনো সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা, রিজিকদাতা নেই। আর এই বাক্যটি মনে-প্রাণে বিশ্বাস করা, পালন করা হচ্ছে আল্লাহর একত্ববাদের উপর বিশ্বাস করা।

চলুন জেনে নিই একত্ববাদের প্রকারভেদ সম্পর্কে।

তাওহীদ বা একত্ববাদ এর প্রকারভেদ মত অনুসারে ভিন্নতা রয়েছে । কারও কারও মতে তিন প্রকার আবার কারও মতে একত্ববাদ চার প্রকার। সেগুলো হলোঃ

  • তাওহীদুর রুবুবিয়্যাহ
  • তাওহীদুল ঊলূহিয়্যাহ
  • তাওহীদুল আসমা ওয়াস সিফাত
  • তাওহীদুল হাকিমিয়্যা। মূলত তাওহীদ তিন প্রকার।

একজন মাত্র স্রষ্টা বা সৃষ্টিকর্তা, অন্নদাতা বা রিজিকদাতা, সবকিছু নিয়ন্ত্রণ কারি বা কর্তৃত্বকর ইত্যাদি সব বিষয়গুলো চোখ বুজে বিশ্বাস করাই হচ্ছে তাওহীদুর রুবুবিয়্যাহ

আমাদের সৃষ্টিকর্তা একজন, তিনি হচ্ছেন মহান আল্লাহ তায়ালা, এই দুনিয়াতে আমরা শুধুমাত্র তাঁরই উপসনা বা ইবাদত করবো। সকল তাগুতকে বর্জন করা বা যারা নিজেদেরকে সৃষ্টিকর্তার মতো ক্ষমতাবান মনে করে, যারা মনে করে তারা সবকিছু করতে পারে এইসব পাপীদের বর্জন করা। এটি হচ্ছে তাওহীদুল ঊলূহিয়্যাহ

আমরা সবাই জানি আল্লাহ তাআলার ৯৯ টি গুণবাচক নাম রয়েছে। যেগুলোকে একসাথে বলা হয় আসমাউল হুসনা। আর কুরআন ও হাদিসে আল্লাহর নাম উল্লেখিত রয়েছে। তাছাড়া কুরআনের বিভিন্ন আয়াতে আল্লাহর গুণাবলী গুলো বর্ণনা করা হয়েছে। আল্লাহর প্রতিটা নামের অর্থ ও গুণাবলী ইত্যাদি না জেনে আল্লাহকে বিশ্বাস করা হচ্ছে তাওহীদুল আসমা ওয়াস সিফাত

এই পৃথিবীতে যত আইন-কানুন রয়েছে সবকিছুর ঊর্ধ্বে আমাদের রব বা সৃষ্টিকর্তার আইন। পৃথিবীতে যত ধরনের অপরাধ রয়েছে যেমন চুরি বা ডাকাতি করা, খুন করা, জেনা করা, ঘুষ বা সুদ খাওয়া ইত্যাদির সবকিছুর শাস্তি একমাত্র আল্লাহ তাআলার আদেশ অনুযায়ী প্রদান করতে হবে। তাগুতের আবিষ্কৃত গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, রাষ্ট্র তন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা, জাতীয়তাবাদ ইত্যাদি পুরোপুরি বাদ দিতে হবে। আর এটাই হচ্ছে তাওহীদুল হাকিমিয়্যা

একত্ববাদের কিছু রচনামূলক প্রশ্ন দেখে নাও

  • একত্ববাদ এর তাৎপর্য ও গুরুত্ব লেখ।
  • একত্ববাদ কি? একত্ববাদ সম্পর্কে তোমার মতামত দাও?
  • আমাদের সৃষ্টিকর্তা কেবলই একজন। সৃষ্টিকর্তার একাত্মবাদ বিস্তারিত আলোচনা করো?
  • তোমার নিজের মতো করে আল্লাহর একত্ববাদের পরিচয় দাও?
  • তাওহীদ বা আল্লাহর একত্ববাদ কোরআন ও হাদিসের আলোকে ব্যাখ্যা কর?
  • আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাসের উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত লিখ।
  • তাওহীদে বিশ্বাস এর গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা বর্ণনা কর?

একত্ববাদের কিছু সংক্ষিপ্ত উত্তরমূলক প্রশ্ন দেখে নাও

তাওহীদ শব্দের অর্থ কি?
উঃ একত্ববাদ

তাওহীদ বা একত্ববাদ এর বিপরীত ধারণা করা কিসের সামিল?
উঃ শিরক

একত্ববাদ কাকে বলে?
এই আর্টিকেলে এর উত্তর দেওয়া হয়েছে।

একাত্মবাদ কয় প্রকার? এবং কী কী?
এই আর্টিকেলে এর উত্তর দেওয়া হয়েছে।

তাওহীদের গুরুত্ব সম্পর্কে লিখ?
একজন মানুষ মুমিন বা মুসলিম হওয়ার প্রথম শর্ত হচ্ছে আল্লাহ তা’আলার একত্ববাদ এর উপর বিশ্বাস স্থাপন করা। পৃথিবীতে যত নবী রাসুল এসেছেন উনারা সবাই নিজ নিজ উম্মতদেরকে তাওহীদের দাওয়াত দিয়েছেন। এককথায় ইসলামের সকল আদর্শ এবং শিক্ষা তাওহীদ বা আল্লাহর একত্ববাদের উপর প্রতিষ্ঠিত।

ইসলামের উপর বিশ্বাসের মূল ভিত্তি কি?
উঃ তাওহীদ বা একত্ববাদ

তাওহীদকে কি বলা হয়?
উঃ ইসলামের বুনিয়াদ

নবী-রাসূলগণের প্রথম দায়িত্ব কি?
উঃ তাওহীদের বাণী প্রচার করা।

Share your love
Salim Sikder
Salim Sikder

বিডিপপুলার তরুন প্রজন্মের বিশ্বস্ত একটি নাম। বিডিপপুলারে আমরা চেষ্টা করি যেনো ভালো কিছু আপনি পান। বিডিপপুলারের সাথেই থাকুন।

Articles: 8