সময়ের সঠিক ব্যবহার করতে শিখুন

সময়ের সঠিক ব্যবহার করা আমাদের সকলের একান্ত দরকার। সময় একান্ত আপনার। আপনি চাইলেই এর সদ্ব্যবহার করতে পারেন। আবার চাইলেই সময়কে যেকোন ভাবে খরচ করে অপব্যয় করতে পারেন। আমরা সকলেই জানি সময় একবার গেলে তা আর ফিরে আসে না। সময়কে টাকা দিয়েও কেনা যায় না।

আবার সদ্ব্যবহার না করলেও জীবনের একপর্যায়ে কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হয়। আর তাই সময়ের সঠিক ব্যবহার করলে আপনি আপনার লক্ষ্যটাকে অর্জন করতে সক্ষম হবেন।

এখানে আমি আমার নিজের উপলব্ধি করার কিছু দিক নিয়ে আলোচনা করবো যা আপনার দৈনন্দিন সময়কে সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে শেখাবে।

সময় চলে গেলে আর ফিরে আসে না

সময় চলে গেলে আর ফিরে আসে না বা আসবে না এটা হয়তো আমরা সবাই জানি কিন্তু সেই অনুযায়ী আমরা কেউ কাজ করতে পারিনা। আজকের কাজ কালকে করব কিংবা কাজ গুলো ফেলে রাখার কারণে সেই কাজগুলো আকারে বড় হতে থাকে।

 সময়ের কাজ সময়ে না করলে সেই কাজগুলো বাড়তেই থাকে যার ফলে আমাদের আত্মবিশ্বাস চলে যায়। যদি সময়ের কাজগুলো সময়ে করে ফেলেন তাহলে দেখবেন প্রত্যেকটি কাজ আত্মবিশ্বাসের সাথে করতে পারেন এবং সেই কাজগুলো করতে ভালো লাগছে।

এতে করে পরবর্তীতে সেই কাজগুলো করতে আলসেমি লাগবেনা। সময়ের মূল্য সেই বোঝে যে জীবন থেকেই গুরুত্বপূর্ণ সময় চলে গেছে।

১ মিনিটের জন্য যে ব্যক্তি ট্রেন মিস করেছে, সেই ব্যক্তি জানে তার কাছে এক মিনিটে মূল্য কতটা ছিল। তখন বন্ধ হবে, ইস যদি ১ মিনিট আগে আসতাম তাহলে ট্রেন টা পেতাম।

অনেক কিছু ফিরে আসে বা ফিরিয়ে আনা সম্ভন, কিন্তু সময়কে ফিরিয়ে আনা সম্ভব না।

-আবুল ফজল

সময়ের সঠিক ব্যবহারের কৌশল

আমাদের অনেক কাজের ফলে অযথা সময় চলে যাচ্ছে যা আর কখনো ফিরে আসবে না। আর সেই কাজগুলো আমাদের অবশ্যই কাজে লাগাতে হবে এবং কি কি কারণে সময়মতো চলে যাচ্ছে সেগুলো যেন আর না হয় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে।

উপদেশ দেওয়া বন্ধ করুন

অযথা অকারনে কাউকে কোন উপদেশ দেয়া বন্ধ করুন। অনেকেই নিজের বীরত্ব প্রকাশ করার জন্য বা নিজের উপস্থিতি প্রকাশ করার জন্য যে কাউকে অকারণে কোন উপদেশ দেয়া শুরু করে। এতে যাকে উপদেশ দিচ্ছেন তার তো কোনো উপকার হচ্ছে না বরং আপনার নিজের অনেক সময় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আর তাকে উপদেশ না দিয়ে বরং আপনি সেই কাজটি মনযোগ দিয়ে করার চেষ্টা করুন।

শরীরচর্চা করুন

স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল। তাই স্বাস্থ্য এবং শরীর ঠিক রাখার জন্য আপনাকে নিয়মিত শরীরচর্চা করতে হবে। নিয়মিত শরীরচর্চা করলে অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায় এবং সময় অপচয় কম হয়। এতে আপনার পার্সোনালিটি বৃদ্ধি পায় যা আপনাকে প্রতিটি কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন করার জন্য উৎসাহ বৃদ্ধি করে। তাই অযথা সময় নষ্ট না করে আপনার স্বাস্থ ও শরীর ভালো রাখার জন্য কিছু সময় শরীর চর্চার পেছনে ব্যয় করুন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় সময় কম দেওয়া

কিছু আধুনিক রোগ আপনাকে আপনার মধ্য থেকে বিয়োগ করতে হবে, যেমন সোশ্যাল মাধ্যম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করা কমিয়ে দিন অথবা সম্ভব হলে একেবারে বন্ধ করে দিন। কারণ এটি আপনার প্রচুর সময় নষ্ট করে ফেলে। আর তাছাড়া বর্তমানে উদ্ভব হওয়া কিছু অসুস্থ গণমাধ্যম থেকে যতটা সম্ভব নিজেকে সরিয়ে কাটবেন।

দৈনন্দিন খবর পেতে আপনি জনপ্রিয় নিউজ সাইটগুলোতে ভিজিট করুন কিন্তু অযথা উল্টাপাল্টা নিউজ সাইটগুলোতে চোখ না ভোলানো ঠিক হবে না। আর যদি আপনি কোন উদ্দেশ্য নিয়ে ফেসবুকে এসে থাকেন তাহলে সেটা ভিন্ন কথা, যেমন অনেকেই ফেসবুকে ভিডিও ও কনটেন্ট তৈরি করে টাকা উপার্জন করছে। আপনিও যদি এমন কিছু করে থাকেন তাহলে সেটা ভিন্ন কথা।

কেনাকাটার পূর্বে প্লান

সময়ের সর্বোচ্চ ব্যবহার করার জন্য শপিং মলে কেনাকাটা করতে যাওয়ার আগে কি কি কেনাকাটা করবেন তার একটি সুনির্দিষ্ট তালিকা বানিয়ে নেবেন। কারণ এতে আপনার অপ্রয়োজনীয় কেনাকাটা করা বন্ধ হবে এবং সময় বেচে যাবে। এবং সেখানে যেয়ে কি কেনবো কি কেনবো ভেবে সময় নষ্ট করার প্রয়োজন হবে না।

পরিবারকে সময় দিন

আস্তে আস্তে নিজের পরিবারকে সময় দেওয়া শুরু করুন। কাজের ব্যস্ততা ও অন্যান্য কাজের ব্যস্ততার কারণে পরিবারকে সময় দেওয়া হয়না তেমন। অযথা সময় অন্যান্য কাজে নষ্ট না করে সেখান থেকে কিছুটা সময় পরিবারের সাথে কাটান। এতে করে পরিবারের সাথে আপনার সম্পর্কটা আরও ভালো হবে এবং সকলের খোঁজখবর নিতে পারবেন। আর যে কোন বিপদের সময় সর্বপ্রথম আপনার পরিবারে এগিয়ে আসবে তাই পরিবারের দিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে।

লক্ষ স্থির করা

আপনি জীবনে কি করতে চান এবং বড় হয়ে কি হতে চান সেই বিষয়ে আপনাকে পূর্বেই লক্ষ্য স্থির করতে হবে। যেন আপনি সেই লক্ষ্যের প্রতি যা যা করা দরকার সেগুলো করার মাধ্যমে এগিয়ে যেতে পারেন। আর লক্ষ্য ছাড়া কোন কাজে নামলে আপনার সময় অপচয় হবে এবং কান্না করা ছাড়া কোন উপায় থাকবেন।

রাতে পরিকল্পনা করে রাখুন

আপনি সারাটা দিন কি করেছেন এবং পরবর্তী দিন টা কিভাবে কাটাবেন সেটা আপনি রাতে পরিকল্পনা করুন। এতে করে আপনার অনেক সময় বেচে যাবে। কারণ আপনার পূর্ব থেকেই প্ল্যান করা আছে যে আপনি আজকের দিনে কি কি করতে চান। যার ফলে কি করবেন না করবেন সেগুলো ভেবে অযথা সময় নষ্ট করতে হবে না বরং যা করবেন সেই কাজটি যেন মনোযোগ দিয়ে করতে পারেন। এতে করে আপনার জীবনের সাফল্য আসবে এবং অনেকটা সময় বেচে যাবে।

আর রাতে একদম সবকিছু নিরিবিলি থাকে যার ফলে মনোযোগ দিয়ে যেকোনো জিনিস পরিকল্পনা করা যায় বা ভাবা যায়। তবে শুধু পরিকল্পনা করলেই হবেনা আপনাদের সেই অনুযায়ী কাজ করতে হবে তাহলে আপনি প্রত্যেকটা কাজে সফল হবেন।

কাজে মনোযোগী হওয়া

আপনি যেই কাজটি করবেন কিংবা যে কাজটি করতে চাচ্ছেন সেটি আপনাকে অবশ্যই মনোযোগ দিয়ে করতে হবে। কারণ মনোযোগ দিয়ে কাজ না করলে ১ মিনিটের জায়গায় ৫ মিনিট লাগবে সেই কাজটি করতে এবং ভুল হওয়ার অনেক সম্ভাবনা থাকবে।

আপনি যদি পুরো মনোযোগ সহকারে সেই কাজটি করেন তাহলে অল্প সময়ের মধ্যে করে ফেলতে পারবেন এবং ভুল হওয়ার সম্ভাবনা একদম কমে যাবে। কারণ মনোযোগ দিয়ে যে কাজগুলো করা হয় সেই কাজগুলোতে ভুলের পরিমাণ কম থাকে।

আর আপনি মনোযোগ দিয়ে কাজ না করে কোন ভুল করলে সেই কাজটি আপনাকে আবার করতে হবে যার ফলে অনেক সময় অপচয় হচ্ছে।

স্কিল বা দক্ষতা গড়ে তুলুন 

অযথা যেকোনো কাজে সময় নষ্ট না করে আপনি বিভিন্ন কাজ শিখতে পারেন, এতে করে আপনার সেই কাজের প্রতি স্কিল বা দক্ষতা বাড়বে। আপনি আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে পরবর্তীতে অনেক কিছু করতে পারবেন। এবং অবশ্যই জিনিসটি মনে রাখবেন শিখলে কোন কিছু ফালানো যায়। কখনো না কখনো তা সময়ের সাথে কাজে লেগে যায়। তাই আপনি যখন অযথা সময় নষ্ট করবেনই তাহলে কোন কাজ শিখুন।

যেমনঃ বর্তমানে গ্রাফিক্স ডিজাইন, ভিডিও এডিটিং, ওয়েবসাইট ডিজাইন, মোশন গ্রাফিক্স, অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি সহ আরো অনেক কাজ রয়েছে যেগুলোর স্কিল অর্জন করতে পারে। আর আপনার মত অনেকেই সময় নষ্ট না করে এগুলো শিখে মাসে লাখ লাখ টাকা অর্জন করছে। আর এই দিকে আপনি আমি টাকা নেওয়ার জন্য হাত পাতছি।

একটি কথা মনে রাখবেন খাওয়াও অন্যান্য কাজের মতো একটি ইবাদত। তাই খাবার সময় অযথা কথা বলা এবং কখনও টেলিভিশনের সামনে বসে খাবার বা মোবাইল দেখতে দেখতে খাবেন না। এতে আপনার প্রচুর সময় বেঁচে যাবে এবং সময়ের সদ্ব্যবহার করতে পারবেন।

লক্ষ্য করবেন আপনি যদি কোন অফিসে কাজ করেন, তাহলে সেই অফিসের সকল কাজ করলো আপনি সময়ের মধ্যে কিংবা সময়ের আগে করতে পারলে আপনার বস খুশি হয়। কিন্তু যদি আপনি সেই কাজগুলো করবেন করবেন করে ফেলে রাখেন এবং অনেক দেরি হয়ে যায় তাহলে আপনাকে অনেক কথা শুনতে হয়।

Share your love
Salman Shemul☑️
Salman Shemul☑️
Articles: 20