ফেসবুকে আয়ের নতুন মাধ্যম চালু – ফেসবুক গ্রুপ পরীক্ষামূলক

ফেসবুকে আয়ের নতুন মাধ্যম চালু

সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম থেকে বর্তমানে অনেকেই আয় করতেছেন – ফেসবুক পেজের মাধ্যমে। একটি পেইজ ফ্রিতে তৈরি করে সেখানে নতুন নতুন কন্টেন্ট পাবলিশ করে আয় করা যায়। বাংলাদেশের মত দেশে ফেসবুক ব্যবহার কারীর সংখ্য অনেক। আমাদের দেশে প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করে। এখানে দেখা যায় বিভিন্ন ধরনের গ্রুপ তৈরি হয়। এবং সেখানে অনেক মেম্বার থাকে।

ফেসবুক পেইজে ব্যবহারকারীরা চাইলেই পোষ্ট করতে পারেন না। কিন্তু ফেসবুক গ্রুপে চাইলেই পোষ্ট করা, মেম্বার যোগ করা সহ আরো অনেক ধরনের সুযোগ সুবিধা থাকে। অর্থাৎ পরিপূর্ণ স্বাধীনতা থাকে। কিন্তু ইতিপূর্বে ফেসবুক গ্রুপ থেকে কোনো আয় করার ব্যবস্থা ছিলো না। যদিও এত বড় একটা কমিউনিটি তৈরি হয় গ্রুপের মাধ্যমে তারপরও আয় করার ব্যবস্থা না থাকাটা কেমন যেনো মনে হয়।

কিন্তু এবার ফেসবুক গ্রুপ থেকে অর্থ আয় করার সম্ভাব্য মাধ্যমগুলো ফেসবুক যাচাই বাছাই করে দেখছে। যেমনঃ

  • নির্দিষ্ট পরিমান ফি গ্রহন করা – বিশেষ কন্টেন্টের জন্য।
  • মেইন গ্রুপের ভিতর সাব গ্রুপ তৈরির মাধ্যমে আলোচনার সুবিধা করে।
  • সাবস্ক্রিপশন অথাৎ টাকা প্রদানের মাধ্যমে বিশেষ সুবিধা প্রদান করা।
  • গ্রুপ সদস্যদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে তহবিল গঠন করে গ্রুপ পরিচালনার ব্যয় নির্বাহ করা।
  • গ্রুপ সদস্যদের বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করা। অ্যাডমিন গ্রুপে সদস্যদের অর্থ পরিশোধের মাধ্যমে বিশেষ ভিন্ন বিষয়ে আলোচনার সুযোগ করে দেয়া।
  • অ্যাডমিন গ্রুপ বিভিন্ন ক্যাটাগরির সদস্যদের জন্য গ্রুপের দৃশ্যমান পরিবর্তন আনতে পারবেন।

কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে

  • এক্ষেত্রে কন্টেন্ট নির্মাতাদের বিশেষ সুবিধা দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।
  • গ্রুপে এনগেজমেন্ট বাড়ানোর জন্য কমিউনিটি তৈরিতে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া।
  • অ্যাডমিনরা গ্রুপের মাধ্যমে ই-কমার্সের দ্বারা পন্য বিক্রির বিশেষ সুবিধা পাবে।
  • গ্রুপের আলাদা আলাদা লুক দেয়া।
  • গ্রুপে ভালো পোষ্টের জন্য সদস্যরা কমিউনিটি অ্যাওয়ার্ড দেওয়ার সুবিধা।
  • ফেসবুক পেইজ এবং গ্রুপ গুলোর সেবা এক জায়গায় করা। গ্রুপের অ্যাডমিনরা যেমন সুবিধা পেয়ে থাকেন ঠিক তেমনি পেইজ অ্যাডমিনরা এই ধরনের সুবিধা গুলো পেয়ে থাকবেন।

তবে পরিশেষে উপরে উল্লেক্ষিত সকল সুযোগ সুবিধা গুলো বর্তমানে প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। আশা করা যায় পরীক্ষামূলক ব্যবহারের পরেই সুবিধা গুলো সবার মাঝে উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *