ফেসবুক পেজের জন্য যেভাবে ভিডিও তৈরি করবেন

বর্তমান সময়ে আমাদের সকলের কাছে ফেসবুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে। আর এখন ফেসবুক প্রোফাইল ফেসবুক পেজে ভিডিও বানিয়ে হাজার হাজার টাকা আয় করা যায়। ফেসবুক ভিডিও আপলোড করলে তা ভাইরাল হলে হাজার হাজার মানুষের কাছে পৌঁছে যায়, আর সেই কথা মাথায় রেখেই অনেকেই ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করেন কিভাবে হাজার হাজার লাইক শেয়ার ও কমেন্ট পাওয়া যায় সেই উদ্দেশ্যে।

তবে আপনাকে অবশ্যই এই বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে, একজন ভিউয়ার যেন ভিডিওটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দেখে। শুধু বেশি বেশি শেয়ার কিংবা লাইক নয়। একটু বোঝা যায় শুধু হাজার হাজার শেয়ার ও লাইক করলে চলবে না, যদি আপনার ভিডিও ভিউ আররা অল্প একটু দেখেই চলে যায় তাহলে সেই ভিডিওটি বেশি মানুষের কাছে পৌঁছায় না।

নিশ্চয়ই আপনি যে ভিডিওটি তৈরি করছেন সেই ভিডিওর পিছনে কিছু থাকতে হবে, যা ভিউয়ারদের আকৃষ্ট করবে আপনার ভিডিও দেখার জন্য। সাথে কোন শিক্ষণীয় বা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাসেজ থাকলে আরো ভালো হয় এতে আপনার ভিডিওটি যে কেউ শেয়ার করতে বাধ্য হবে। যদি আপনার মেসেজ ছোট হয় তাহলে আপনি ছোট আকারে ভিডিও তৈরি করতে পারেন। আর যদি গুরুত্বপূর্ণ মেসেজটি বড় হয় তাহলে সেই অনুযায়ী ভিডিও বানান যেনো ভিডিওতে বেশি বেশি এনগেজমেন্ট ও ভিডিও শেয়ার করে।

অনেকেই হয়তো ভাবছেন এগুলো কিভাবে করবেন। তবে বিষয়টা মোটেও কঠিন কিছু নয়। ফেসবুকে ভিডিও বানানোর দিকনির্দেশনা মেনে চললে ও কিছু টিপস অবলম্বন করলে আপনার ভিডিওকে উপরে নিয়ে যাওয়া সম্ভব অনেকটাই।

তবে কীভাবে বিষয়টি সহজ করবেন ও ভিডিও বানানোর বিভিন্ন দিকনির্দেশনা জানবেন সেই কথা মাথায় রেখে আপনাদের সকলের উদ্দেশ্যে আজকের এই পোস্টটি। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

ফেসবুকে ভিডিও বানানোর দিকনির্দেশনা

আজকে এই পোষ্টের মাধ্যমে আমরা জানব ফেসবুকের জন্য একটি ভিডিও তৈরীর ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলো কে সবথেকে বেশি অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত এবং কোন সকল বিষয়গুলো কে বর্জন করা উচিত। যেন আপনার ভিডিওটি সকলে পছন্দ করে।

মানসম্মত ভিডিও তৈরি

ফেসবুকের ভিডিও তৈরীর জন্য প্রথম শর্তই হলো আপনার ভিডিওর কোয়ালিটি মানসম্মতকরন। সহজ ভাষায় আপনাকে মানসম্মত ভিডিও তৈরীর আপ্রাণ চেষ্টা করতে হবে। তবে এর জন্য যে অনেক টাকা খরচ করতে হবে এমনটা নয়। ছোটখাট কিছু বিষয়ে মাথায় রেখেই মানসম্মত ভিডিও তৈরি করা সম্ভব।

ভিডিওর সাউন্ড কোয়ালিটি ও ভিডিও রেজুলেশন এর দিকে বিশেষ লক্ষ্য রাখতে হবে। চাইলে আপনি নিজে শুটিং করার জন্য ভিডিও তৈরির যথাযথ সরঞ্জাম ক্রয় বা জোগাড়ের চেষ্টা করতে পারেন।

ভিডিও বেশি বড় না করা 

ভিডিও কনটেন্ট অবশ্যই সংক্ষিপ্ত এবং আকর্ষণীয় হতে হবে একটি মানসম্মত ভিডিওর জন্য। একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, অডিয়েন্সকে আকর্ষিত বা লোভ দেখানোর জন্য শুধুমাত্র ১০ সেকেন্ড পাওয়া। তাদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ অডিয়েন্স চলে যায় ভিডিওটি যদি দুই মিনিট বা তার বেশি দৈর্ঘ্যের হয়ে থাকে। এতে বোঝা যায় ভিডিওর শুরুতে একটা চমক বা আকর্ষণ দিয়ে ভিডিওটি শুরু করতে হবে। তাহলে দেওয়ারা আপনার ভিডিওটি দেখার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করবে।

প্রতিনিয়ত ভিডিওকে আপডেট

আপডেট বলতে বর্তমান সময়ের সাথে সামঞ্জস্য রেখেই ভিডিও তৈরি করাকে বোঝানো হয়েছে। অর্থাৎ বর্তমানে যে সকল বিষয় ট্রেন চলছে আপনাকে সেই বিষয়ের উপর ভিডিও বানানোর বেশি জোর দিতে হবে। ট্রেন্ডিং ভিডিও বানানো যে আপনার ভিডিওতে শুধু ভিও বেশি হবে বিষয়টা এমন না বরং সকলে বুঝতে পারবে আপনি সবসময় আপডেটেড বা ট্রেন্ডিং বিষয় নিয়ে ভিডিও করে থাকেন। এতে করে আপনি ভালো মানের ভিউয়ার কমিউনিটি পেয়ে যাবেন।

নির্দিষ্ট অডিয়েন্সকে টার্গেট করা

ফেসবুকে ভিডিও বানানোর জন্য এই দিকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আপনি কাদের জন্য ভিডিও বানাচ্ছেন তাদের নির্বাচন করা অর্থাৎ আপনার নির্দিষ্ট অডিয়েন্সকে টার্গেট করা। আর আপনার অডিয়েন্সকে টার্গেট করার জন্য আপনি টার্গেটিং টুল ব্যবহার করে অডিয়েন্সের একটি মানদন্ড নির্বাচন করুন। এতে করে আপনি নির্ধারণ করতে পারবেন আপনার ভিডিওটি দেখতে উৎসব বা আগ্রহ ভিউয়ারদের।

উপরোক্ত নিয়মকানুন গুলো মেনে চললে অবশ্যই আপনার বেশিরভাগ ভিডিও মানুষের মনোযোগ করতে সক্ষম হবে। আর এভাবেই নিজের ভিডিও বা ব্যবসাকে পৌঁছে দিতে পারবেন সকলের কাছে।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Leave a Comment