ফ্রি ব্যাকআপ সার্ভিস অ্যাপ মোবাইল এবং কম্পিউটারের জন্য

বাংলাদেশ কম্পিউটার এবং মোবাইল ব্যক্তিগত ছবি, ভিডিও সহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক ফাইল থাকে যেগুলো আমরা কখনোই হারাতে চাইনা। মোবাইল বা কম্পিউটার নষ্ট হয়ে গেলে বা হারিয়ে গেলে সকল প্রয়োজনীয় ফাইল সমূহ হারিয়ে যাওয়ার ভয় থাকে সবসময়। আর এসব সমস্যা সমাধানের জন্য রয়েছে ফ্রী বেকাপ সার্ভিস।

ব্যাকআপ সার্ভিসের মাধ্যমে আপনার প্রয়োজনীয় এবং গুরুত্বপূর্ণ সকল ডাটা আজীবনের জন্য সংরক্ষণ বা ব্যাকআপ রেখে দিতে পারবেন। পৃথিবীর যে কোন জায়গা থেকে সেগুলো অ্যাক্সেস করতে পারবেন। তাছাড়া আপলোড ও ডাউনলোড করতে পারবেন এবং ফাইল শেয়ার করতে পারবেন।

ফ্রি বেকাপ সার্ভিস এর মাধ্যমে আপনি সম্পূর্ণ ফ্রিতে প্রয়োজনীয় ডাটা জমা রাখতে পারবেন। তবে একটি নির্দিষ্ট অ্যামাউন্ট পর্যন্ত বিভিন্ন বেকাপ অ্যাপস গুলো আপনাকে এই সুবিধা প্রদান করবে। আপনার প্রয়োজনীয় ডাটাসমূহ ব্যাকআপ সার্ভিসে থাকলে তা হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাছাড়া ফ্রিতে এই সুবিধা নিতে পারছেন বলে আপনার আর্থিক টেনশন নেই।

ফ্রি বেকাপ সার্ভিস অ্যাপ সমূহ

বর্তমান সময়ে ফ্রি বেকাপ সার্ভিসের অনেক মাধ্যম রয়েছে। প্রতিটি ভিন্ন ভিন্ন ব্যাকাপ সার্ভিসে একটি নির্দিষ্ট অ্যামাউন্ট ডাটা সেভ করা যায়। আমাদের এই আর্টিকেলে আমরা আপনাদের জন্য ১০টি বেকাপ সার্ভিস অ্যাপ নিয়ে আলোচনা করবো।

গুগল ড্রাইভ (Google drive)

ফ্রি বেকাপ সার্ভিসের জন্য গুগল ড্রাইভ অন্যতম জনপ্রিয় একটি ক্লাউড প্ল্যাটফর্ম। এই অ্যাপে আপনি ফ্রিতে ১৫ জিবি ডাটা সংরক্ষণ করতে পারবেন। আর প্রিমিয়াম সার্ভিসের জন্য প্রতি মাসে প্রায় ১০ ডলার খরচ করতে হবে। গুগল ড্রাইভে  ছবি, অডিও, ভিডিও সহ বিভিন্ন ফাইল জমা রাখতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনার একটি গুগল অ্যাকাউন্ট দরকার হবে। যদি আপনার গুগোল বা জিমেইল একাউন্ট না থাকে তাহলে গুগলের অফিসিয়াল সাইটে গিয়ে এখনই জিমেইল বা গুগল মেইল অ্যাকাউন্ট খুলুন।

বর্তমানে প্রায় সব স্মার্টফোনেই গুগল ড্রাইভ অ্যাপটি থাকে। অন্যান্য প্ল্যাটফর্মের ব্যবহারকারীরা এই স্টোরেজ সুবিধা নিতে পারেন। সহকারী গুগোল ফটোস ব্যবহার করে মোবাইলে হাই-ডেফিনেশন ফটো স্টোর করতে পারবেন।

Google drive

ড্রপবক্স (Dropbox)

ফ্রি ব্যাকআপ সার্ভিসের জন্য ড্রপবক্স অন্যতম সেরা একটি প্ল্যাটফর্ম। এখানে ফ্রিতে সর্বনিম্ন ২ জিবি ডাটা স্টোরেজ করতে পারবেন। তাছাড়া ড্রপবক্সকে সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে লিংক করে বন্ধুদের রেফার করলে সর্বোচ্চ স্টোরেজ ১৬ জিবি পর্যন্ত বৃদ্ধি করতে পারবেন।

আপনার ব্যক্তিগত ড্রপবক্স একাউন্টে পাবেন অপরিসীম জায়গা। তাছাড়া এখান থেকে ফাইল রিকভারি এবং ভার্সনিংয়ের সুবিধা পাবেন।

Dropbox

অন ড্রাইভ (OneDrive)

ফ্রি বেকাপ সার্ভিসের জন্য উইন্ডোজ ১০ এ OneDrive যুক্ত করা হয়েছে। তাছাড়া এটি পরিচালনার জন্য অন্য কোন অ্যাপ ইন্সটল করতে হয় না। এখানে ফ্রিতে ৫ জিবি ফাইল করতে পারবেন। প্রতিমাসে ২ ডলার খরচ করে প্রিমিয়ামে ৫০ জিবি ফাইল রাখতে করতে পারবেন। মাইক্রোসফটের নতুন অপারেটিং সিস্টেমের জন্য এটি অত্যন্ত সুবিধাজনক।

উইন্ডোজের অন্যান্য বার্সন ব্যবহারকারীরা এই সুবিধাটি নিতে পারবেন তার জন্য মাইক্রোসফট একাউন্ট থাকতে হবে। যদি আপনার মাইক্রোসফট একাউন্ট না থাকে তাহলে microsoft-এর সাইটে গিয়ে একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন। Microsoft-এর একাউন্ট থাকলে স্কাইপি এবং আউটলুক সহ microsoft-এর সমস্ত প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

OneDrive

মেঘা (Mega)

এটি ফ্রি ব্যাকআপ সার্ভিসের মধ্যে অন্যতম। এখানে ফ্রিতে ৫০ জিবি ডাটা স্টোরেজ করতে পারবেন। তাছাড়া প্রিমিয়াম ভার্সনে ২০০জিবি পর্যন্ত ডাটা স্ট্যাটাস পারবেন তার জন্য প্রতি মাসে আপনাকে ৯ ডলার খরচ করতে হবে।

এটি মোবাইল এবং ডেস্কটপ ডিভাইসে ব্যবহারযোগ্য। তাছাড়া এখানে একটি মোবাইল অ্যাপ আছে যেখানে ফটো ফাইল আপলোড করা যাবে। ফার্ম সার্ভিসের যাওয়ার আগে ডিভাইসের সব ডাটা জমা হয় ক্লাউডে।

Mega

আইক্লাউড (iCloud)

এখানে ফ্রিতে ৫ জিবি এবং প্রিমিয়ামে প্রতি মাসে এক ডলারের ৫০ জিবি ডাটা স্টোরেজ করতে পারবেন। যদি আইফোনের ব্যাকআপ iCloud এ করেন তাহলে অ্যাপেল প্রদত্ত ফ্রি ৫ জিবি চেয়ে বেশি প্রয়োজন পড়বে।

ম্যাক ফাইন্ডার (Mac Finder) অ্যাপ আইক্লাউড সমন্বয়ে তৈরি যেখানে যেকোন ফাইল স্টোর করা যায়। iWork অফিস সুইট তৈরি ডকুমেন্টগুলো আইক্লাউড সেভ করা এবং ডিভাইসে সিঙ্ক করা যাবে। উইন্ডোজ ব্যবহারকারীরা অফিসিয়াল ক্লায়েন্ট ব্যবহার করে আইক্লাউড দিয়ে তাদের ফাইল সিঙ্ক করতে পারবেন।

iCloud

বক্স (Box)

এই ফ্রী বেকাপ সাইটে আপনি ১০ জিবি ফ্রি স্টোরেজ এবং ১০০ জিবি প্রিমিয়াম স্টোরেজ ৫ ডলারে পাবেন। সম্প্রতি Box’s তাদের ওয়েবসাইটে ব্যবসায়িক প্লানে প্রত্যেক ব্যবহারকারীদের জন্য ১৫ ডলার নির্ধারণ করেছে। সেই সাথে ১০ জিবি ফ্রি অপশন থাকবে।

অফিস ৩৬৫ (Office 365) এবং গুগল ডকস (Google Docs) এর মত বিভিন্ন অ্যাপে এটা সাপোর্ট করে।

Box

নেক্সট ক্লাউড (NextCloud)

এর সাহায্যে আপনি নিজস্ব সার্ভারে ফ্রি সফটওয়্যার ইন্সটল এবং ডাউনলোড করতে পারবেন। হোম নেটওয়ার্ক ক্লাউড স্টোরেজের জন্য সার্ভার ব্যবহার তুলনামূলক ফাস্ট। আপনার যদি আইটি সার্ভার না থাকে তাহলে ওয়েবসাইট থেকে নেক্সট ক্লাউড বক্স (NextCloud Box) কিনতে পারেন।

NextCloud

স্পাইডার ওয়াক (SpiderOak)

এখানে ফ্রি ২ জিবি ৬০ দিনের জন্য ডাটা স্টোরেজ করা যাবে। তাছাড়া প্রিমিয়াম এক মাসের জন্য আর ২৫০ জিবি ৯ ডলারে কিনতে পারবেন।

এই ওয়েবসাইটের দাবি ক্লাইন্ট ইনস্টলিং এর পর ডাটা সিঙ্কয়ের আগেই এনক্রিপটেড হয়। এটি Windows, MAc, Linux, Android, iOS, SpiderOak ব্যবহারযোগ্য।

SpiderOak

পিক্লাউড(pCloud)

এই ফ্রি বেকাপ সাইটে আজীবনের জন্য ২০ জিবি ডাটা ফ্রি স্টোর করতে পারবেন। এটি ডেক্সটপ এবং মোবাইল প্ল্যাটফর্মের জন্য ব্যবহারযোগ্য তাছাড়া ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যবহারকারী এখানে লগইন করতে পারবে।

pCloud

আইড্রাইভ (IDrive)

এই সাইটে আজীবনের জন্য ফ্রি ৫ জিবিএবং প্রিমিয়াম ৫২ ডলারে এক বছরের জন্য দুই টেরাবাইট ফাইল স্টোর করতে পারবেন। ফ্রী বেকাপ অ্যাপস এর মাধ্যমে আইড্রাইভ ফাইল সিঙ্কিং করে বিরতিহীনভাবে। ওয়েব ইন্টারফেস ফেসবুক, টুইটার এবং ইমেইল এর মাধ্যমে ফাইল শেয়ারিং সাপোর্ট করে।

তাছাড়া এখানে ভুল করে কোনো ফাইল ডিলিট হয়ে গেলেও তা ফেরত পাওয়া যায়। IDrive আপনাকে IDrive এক্সপ্রেস অফার করবে যেখান থেকে সব ডিলিট হয়ে যাওয়া ফাইল পুনরায় পাবেন।

IDrive

উপরে বর্ণিত তিনি দশটি বেকাপ সার্ভিস অ্যাপের মাধ্যমে সহজেই বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সদস্যদের মাঝে তথ্য আদান প্রদান এবং বিভিন্ন ডিভাইসে ডাটা সিঙ্কিং সম্ভব। কোন পেমেন্ট ছাড়াই গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী সংরক্ষণের জন্য ফ্রি বেকাপ সার্ভিস এর তুলনা নেই।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Leave a Comment