মুখের দুর্গন্ধের জন্য ১০টি কারণ – জেনে নিন

মুখের দুর্গন্ধ বিষয়টি অনেক খারাপ একটা জিনিস। বিশ্বের প্রায় ২৫ শতাংশ নারী পুরুষ মুখের দুর্গন্ধের সমস্যায় ভুগে থাকেন। কথাটি শুনতে কেমন যেন! অনেকে তো আবার বলেই ফেলেন, মুখ থেকে কি গন্ধ !! দাঁত মাজে না নাকি !!

আপনি যতই সৌন্দর্যের পড়েন না কেন কিংবা যতই স্মার্ট হোন না কেন। যদি আপনার এরকম সমস্যা থাকে তাহলে আপনাকে কেউ পছন্দ করবে না, আপনার সাথে কি মিশতে চাইবে না।

মুখের দুর্গন্ধ হচ্ছে কথা বলার সময় নিঃশ্বাসের সঙ্গে মুখ থেকে অপ্রীতিকর বা অসহনীয় গন্ধ বের হওয়া কি মুখের দুর্গন্ধ বলা হয়। যার আরেক নাম Fetor oris। যাকে আবার মেডিকেল সাইন্সের ভাষায় halitosis বলা হয়।

মুখের দুর্গন্ধের কারণ সম্পর্কে

একটি মানুষের নানা কারণেই মুখের দুর্গন্ধ হতে পারে। তবে এর মধ্যে ধূমপান করা, দাঁতের মধ্যে খাবার জমে থাকা, সময় মতো দাঁত ব্রাশ না করা, অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, ইত্যাদি যেমন রয়েছে তেমনি তার পেছনে আরও নানা শারীরিক কারণও রয়েছে। চলুন তাহলে ১০টি কারণ জেনে নেই মুখ থেকে দুর্গন্ধ বের হওয়ার।

খাবার থেকে মুখে দুর্গন্ধ

মুখের দুর্গন্ধের কথাটি বলতে গেলে প্রথমেই খাবারের কথাটি সামনে আসবে। কারণ খাবার হচ্ছে মুখের দুর্গন্ধের প্রাথমিক কারণের মধ্যে একটি। আবার এগুলোর মধ্যে রয়েছে বিশেষ করে পেঁয়াজ, রসুন, বিশেষ কিছু মাছ, কিছু পানীয় পান, অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবার ইত্যাদি এগুলোর কারণে মুখে দুর্গন্ধ তৈরি হয়।

এ জাতি খাবার থেকে তৈরি দুর্গন্ধ বেশিক্ষণ থাকে না কিন্তু যদি এগুলো খেয়ে দাঁত ব্রাশ করা না হয়, তাহলে এগুলি থেকে দীর্ঘমেয়াদি দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতে পারে। কারণ এই খাবারগুলো ব্যাকটেরিয়া এবং ডেন্টাল প্লাক প্রমোট করে।

ধূমপানের জন্য মুখে দুর্গন্ধ

আমাদের দেশে অধিকাংশ মানুষের মুখের দুর্গন্ধের জন্য প্রধান কারণ হচ্ছে ধূমপান।  নিয়মিত ধূমপান ক্যান্সারের মতো বড় ধরনের রোগ সৃষ্টি করতে পারে। সেইসাথে দাঁতের মাড়িকে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে থাকে। ধূমপানের কারণে দাঁতের ছোপছোপ দাগ পড়ে যা দুর্গন্ধের অন্যতম কারণ।

কাজেই যদি আপনি ধূমপান করে থাকেন তাহলে মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে চাইলে আজই ধূমপান ছেড়ে দিন। হয়তো কাজটি ততটা সহজ নয়, কিন্তু আপনাকে আপ্রাণ চেষ্টা তো করতে হবে। কারণ সেটা মুখের দুর্গন্ধ নয় এটি আমাদের শরীরের জন্য নানাভাবে ক্ষতিকারক। 

কফি পানের ফলে মুখে দুর্গন্ধ

আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন কফিপ্রেমী। যারা কফি ছাড়া তাদের একটি দিনও কাটাতে পারেন না। আবার অনেকে আছেন যাদের সকালে এক কাপ কফি না খেলে দিন শুরু হয় না। তবে আপনিও যদি কপি প্রেমিক হয়ে থাকেন তাহলে আপনার এটি ছেড়ে দেয়া উচিত, বিশেষ করে সকালে। কারণ কারো কারো মুখে দুর্গন্ধ হয়ে থাকে কফি থেকে। 

তবে আপনি যদি কফি পান করেন তবে চেষ্টা করবেন অন্তত সকাল বেলা কফি না খেতে। আমাদের মুখের লালার উপর কফি দারুণ প্রভাব ফেলে। বিশেষ করে এতে থাকা উচ্চমাত্রার ফ্লেভার মুখের ভেতর লালা উৎপাদনে রাস বৃদ্ধি ঘটায়। যার ফলে কম লালা মুখে দুর্গন্ধ তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

তামাক বা তামাকজাতীয় দ্রব্য

এবার আসি অনেকে আছেন যারা হয়তো ধূমপান করেন না কিন্তু পান খান। যারা পান খাওয়া আসক্ত তাদের মুখেও তৈরি হয় দুর্গন্ধ। কারন অনেকেই পানের সাথে তামাক কিংবা জর্দা হিসেবে তামাকজাতদ্রব্য খেয়ে থাকেন।

জর্দয় সরাসরি তামাক পাতা ব্যবহার করা হয়, যা সিগারেটের চেয়েও ক্ষতির দিক অনেক বেশি। কারণ সিগারেটে তামাক ব্যবহার করা হয় রিফাইন করে।

মদ পানের কারণে মুখে দুর্গন্ধ

মদপান মুখের দুর্গন্ধের জন্য মস্ত বড় একটি কারণ। তবে যারা অ্যালকোহলে আসক্ত তাদের মুখে দুর্গন্ধ হওয়াটাই অনেকটা স্বাভাবিক। আর যারা প্রতিনিয়ত মদ্যপান করে তাদের আশেপাশে মানুষরাই জানে তাদের মুখ থেকে কতটা দুর্গন্ধ বের হয়।

আর এর কারনে দুর্গন্ধ হওয়ার মূল কারণ হচ্ছে এটি মুখের Saliva বা লাভার উৎপাদন কমিয়ে দেয়। আর আম্মুর পূর্বেই জেনেছিলাম যে লালার পরিমাণ কমে গেলে মুখে দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়।

চিনির কারণে মুখ থেকে দুর্গন্ধ

আগেই বলেছিলাম অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবার এর কারণে মুখে দুর্গন্ধ হয়। তবে এটা ছাড়াও উচ্চমাত্রার চিনি সমৃদ্ধ খাবারও মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টি জন্য দায়ী। কারণ আমাদের মুখে যেসকল উপকারী ব্যাকটেরিয়া গুলো থাকে, সেগুলো খাওয়ার হতে চিনি গ্রহণ করে থাকে। কিন্তু যিনি গ্রহণের মাত্রা যদি অতিরিক্ত হয় তাহলে সেটি ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে মুখে হালিটোসিস (Halitosis) রোগের সৃষ্টি করে, যা মুখের বাজে গন্ধ তৈরি করে।

হজমের সমস্যার কারণে মুখে দুর্গন্ধ

যেকোনো ধরনের খাবারই যদি ঠিকমতো হজম না হয় তাহলে সেটি দুর্গন্ধ তৈরি করবে। হজম শক্তি বাড়ানোর অনেক উপায় আছে কিন্তু যাদের হজম শক্তি দুর্বল তাদের মুখে গন্ধ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যারা বিশ্বাস করে প্রায়ই ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্য অসুখে ভোগে, তাদের ক্ষেত্রে এই সমস্যাটা বেশি দেখা যায়।

দাঁতে পাথর হলে মুখে দুর্গন্ধ 

আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন খাবার খায়। কিন্তু সেগুলোর মধ্যে কিছু খাবারের অংশও স্বাভাবিকভাবেই আমাদের দাতে আটকে থাকে। যা ভালো ভাবে দাঁত ব্রাশ করার ফলে দাঁতের চিপা থেকে বেরিয়ে যায়, ফলে মুখ পরিষ্কার থাকে।

কিন্তু যারা ঠিকমতো দাঁত ব্রাশ করে না কিংবা দাঁত পরিষ্কার রাখে না, তাদের দাতের গোড়ায় খাবারের অংশ জমে গিয়ে পাথরে পরিণত হয়ে যায় যাকে ডেন্টাল প্লাক বলা হয়। আর দাঁতের মাড়িতে পাথর হলে সেই পাথরের সাথে জিব্বা ও মাড়ির ঘর্ষণে মুখে ক্ষত তৈরি হয়। যার ফলে একসময় মাড়িতে রক্ত ক্ষরণ হয়, অনেক সময় এ রক্ত জমাট বেঁধে পুজো হয় এবং তা থেকে মুখে অনেক দুর্গন্ধ ছড়ায়।

শেষ কথাঃ প্রায় যে সকল কারণে মুখের দুর্গন্ধ হয় সেখান থেকে অনেকগুলোই তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। এগুলো নেওয়া হয়েছে প্রায়  বিভিন্ন মেডিকেল ওয়েবসাইট ঘেটে। ডাক্তার বাসাইনস থেকে যেসকল তথ্য পাওয়া গেছে সেগুলোর উপর ভিত্তি করেই এই লেখাটি সাজানো। আশা করি এখান থেকে কোন কারনে আপনার মুখে দুর্গন্ধ হলে অবশ্যই সেগুলো থেকে বিরত থাকবেন। সবাই সুস্থ থাকবেন ভালো থাকবেন, আল্লাহ হাফেজ !!

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Leave a Comment