পে পার ক্লিক বলতে কি বোঝায় । Pay Per Click

অনেকেই আছেন যারা pay-per-click সম্পর্কে জানতে আগ্রহী কিংবা তাদের এই বিষয়ে কোন ধারনা নেই। আবার অনেকে আছেন কোন কাজ করতে গিয়ে তার সামনে ‘পে পার ক্লিক’ এই লেখাটির সামনে এসেছে যার ফলে সে এখন গুগল এ সার্চ করে আমাদের ওয়েবসাইটে এসেছে।

আবার হতেও পারে আপনার  ‘পে পার ক্লিক’ নামটি আগেও শুনেছেন বা এই সম্পর্কে একটা সুস্পষ্ট ধারণা নিতে এসেছেন। তাহলে আজকের এই লেখাটি আপনার জন্যই। চলুন তাহলে আজকে একদম বেসিক থেকে শুরু করে অ্যাডভান্স পর্যন্ত ‘পে পার ক্লিক’ সম্পর্কে একটা ধারণা লাভ করবো।

পে পার ক্লিক বা পিপিসি কি?

পিপিসি সম্পর্কে বলার আগেই বলেন নেই যে, পে পার ক্লিক (pay-per-click এর সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে পিপিসি (ppc)। এটি একটি অনলাইন অ্যাডভার্টাইজিং মডেল যেখানে একজন বিজ্ঞাপনদাতা তার বিজ্ঞাপনগুলোতে প্রতিবার ক্লিকে একটি ফি প্রদান করে থাকে। অর্থাৎ, বিজ্ঞাপন তার পণ্য বা যে কোন কিছুর বিক্রি বা প্রমোশন করার জন্য অনলাইনে যে এড দিয়ে থাকে  সেখানে একজন ভিজিটরের প্রতিবার ক্লিকে যে পেমেন্ট দিয়ে থাকে ইউজারকে ,তাকেই মূলত পিপিসি বা পে-পার-ক্লিক বলে।

বর্তমানে অনেক ধরনের পিপিসি অ্যাড রয়েছে। তবে সবচেয়ে কমন ধরনটি হচ্ছে পেইড সার্চ অ্যাড। গুগল কিংবা অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনের যখন একজন ভিজিটর কিছু সার্চ করে থাকেন তখন এ ধরনের অ্যাডগুলো আসে। আবার যখন কেউ যখন কোনো পণ্যের খোঁজ করে তখন পেইড অ্যাড বা পিপিসি অ্যাড শো হয়।

বুঝতেই পারছেন পিপিসির সবচেয়ে জনপ্রিয় ফর্ম হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন এডভার্টাইজিং। এই ফর্মটি ফর্ম বিজ্ঞাপনদাতাদের এই সুবিধা দেয় যে, তাদের পণ্য বা সেবা রিলেটেড কোন কিওয়ার্ড যখন একজন নেট ইউজার সার্চ করে, তখন তারা সেই সকল ইউজারদের কাছে সার্চ ইঞ্জিন স্পন্সরড লিংক ব্যবহার করে তাদের পণ্য বা সেবার প্রসার ঘটাতে পারে।

ধরুন যদি কেউ Recondition Mobile লিখে সার্চ দেয়, তবে সার্চ রেজাল্ট পেজের শুরুতেই সেই পেইড অ্যাড দেখতে পাবে যাকে আমরা পিপিসি বলে থাকি। বিজ্ঞাপনদাতাদের জন্য কিওয়ার্ড বেসিস বিড করার সুযোগ রয়েছে। অর্থাৎ সহজ ভাষায়, বিড করার মাধ্যমেই নির্ধারণ করা হয় পে পার ক্লিকের কষ্ট।

কিভাবে কাজ করে পিপিসি (Pay per Click)

পিপিসি একটি বড় ক্যাটাগরি বা বড় একটি বিষয় যার মধ্যে বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম ও মিডিয়া রয়েছ। তবে একে ২টি বড় ক্যাটাগরিতে মূলত ভাগ করা যায়। তা হলোঃ

  • গুগল পিপিসি অ্যাডস
  • সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাডস

গুগল পিপিসি অ্যাডস

আপনি যখন গুগলে পিপিসি অ্যাডক্যাম্পেইনে অংশ নিবেন, তখন আপনার কোম্পানির অ্যাড (যা আপনি শো করাতে চান) ইউজারের সার্চ রেজাল্ট পেজের টপে কিংবা অর্গানিক সার্চ এর নিচে ডিসপ্লে করার জন্য গুগলকে পে করতে হবে। একজন ইউজার যখন আপনার কোম্পানির কোন অ্যাডে ক্লিক করে, তখন সিপিসি বা কস্ট পার

ক্লিক হিসেবে আপনার ডেইলি বাজেট থেকে সেই এমাউন্টটি কেটে নেয়া হয়। তবে এই অ্যামাউন্ট নির্ধারণ করা হয় বিভিন্ন ফ্যাক্টরের উপর ভিত্তি করে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ফ্যাক্টর হচ্ছে কি-ওয়ার্ড। কারণ দামি বা বেশি সার্চ করা কিওয়ার্ডগুলোর ক্ষেত্রে খরচের পরিমাণ বেশি হয়, অন্যদিকে লো সার্চ কিওয়ার্ডগুলোর ক্ষেত্রে সাধারণত খরচ কম হয়।

গুগোল আপনার বাজেট যতক্ষন থাকবে আপনার অ্যাডটি কন্টিনিউ করতে থাকবে এবং যতক্ষন যথেষ্ট পরিমান ইউজার ক্লিক না করে আপনার অ্যাডে। যখন আপনার বাজেট শেষ হয়ে যাবে কিংবা অ্যাডটি ডিসপ্লে করার জন্য আপনি নতুন বাজেট নির্ধারণ না করবেন,তখন অটোমেটিকভাবে আপনার অ্যাডটি ডিসপ্লে করা বন্ধ করে দেবে গুগল। 

গুগল যে সকল উপায়ে অ্যাডগুলো ডিসপ্লে করে থাকে তা হলোঃ

  • সার্চ অ্যাডস 
  • লোকাল সার্চ অ্যাডস
  •  ডিসপ্লে অ্যাডস
  • রি মার্কেটিং 

সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাডস

একজন ইউজার যতক্ষণ না গুগলে কিছু লিখে সার্চ করছে, ততক্ষণ গুগল কোনভাবেই তার কাছে পিপিসি অ্যাড শো করাতে পারে না। সোশ্যাল মিডিয়ায় সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে, যদি সোশ্যাল মিডিয়ায় কোন কিছু সার্চ করা হোক আর না হোক তবুও তার সামনে অ্যাড ডিসপ্লে হবে।

আর এই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বা অ্যাডস এর সবথেকে বড় অংশ দখল করে আছে ফেসবুক। এরপর আছে টুইটার, ইনস্টাগ্রাম বা লিংকডইন ইত্যাদি। বর্তমানে গুগল অ্যাডের চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাড বেশি ইফেক্টিভ ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলোর ক্ষেত্রে।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Leave a Comment