এসি বিস্ফোরণ হওয়ার ৫টি কারন – সতর্ক হোন

বর্তমান সময়ে এসির পরিমাণ তুলনামূলকভাবে বাড়ছে এবং যতই দিন যাবে এর ব্যবহার বাড়তেই থাকবে। তবে এটি ব্যবহার করার পূর্বে এসি বিস্ফোরণের কারণ জেনে রাখা অত্যন্ত জরুরী। আমাদের দেশে কিছু  মানুষের ভুলের কারণে এসি বিস্ফোরণে মানুষ মারা যায়, কিংবা বড় ধরনের আহতের ঘটনা পাওয়া যায়।

এসি সবথেকে বেশি ব্যবহার করা হয়ে থাকে গ্রীষ্মকালে। কারণ গ্রীষ্মকালে আরামদায়ক পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য সবাই এসির দিকে নজর দেয়। তবে এসি শুধু ব্যবহার করলে চলবে না  বরং এর ব্যবহার হওয়া চাই সঠিক এবং সুষ্ঠু। আর তা না হলে আপনার ভুলের জন্য এটি হতে পারে মৃত্যুর কারণ। 

চলুন তাহলে জেনে নেই এসি বিস্ফোরণের জন্য কারণগুলো

নিম্নমানের এসি ব্যবহার

অনেক বিক্রেতা বেশি লাভের জন্য নিম্নমানের এসিগুলো ভালো বলে বিক্রি করে থাকে বা চীন থেকে আমদানিকৃত নিম্নমানের এসিতে দামি ব্রান্ডের স্টিকার লাগিয়ে বিক্রি করে থাকে। আর এসকল এসির কেবল, রেফ্রিজারেটর, কম্প্রেসার অত্যন্ত নিম্নমানের ও গুনগতমান অত্যন্ত খারাপ হয়ে থাকে।

আর এটি ব্যবহার করতে করতে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই তা বিকল হয়ে পড়ে অথবা কোন গোলযোগের সৃষ্টি হয়। এবং বিভিন্ন গোলযোগ থেকে এসি বিস্ফোরণ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে অনেক। তাই বিস্ফোরণ ঠেকাতে অবশ্যই চেষ্টা করুন দেখেশুনে ভালো মানের এসি ক্রয় করার।

লোড অনুযায়ী এসি ব্যবহার না করা

এসির একটি নির্দিষ্ট মাপ থাকে প্রত্যেকটি রুমের আকার অনুযায়ী। একটি বড় রুমে যদি ১ টনের এসি লাগানো হয়, তাহলে সেই ঘরটি ঠান্ডা করার জন্য এসির উপর অতিরিক্ত চাপ পড়বে। আর রেফ্রিজারেন্ট অংশ এত চাপ নিতে পারবে না।

এর ফলে বিকল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে স্থির অভ্যন্তরীণ অংশগুলোর। তাই রুম অনুযায়ী ব্যবহার করা উচিত। অল্প কিছু টাকা সাশ্রয় করতে গিয়ে তখন পুরো টাকাটাই জরিমানা হবে। সাথে যেতে পারে প্রাণটাও।

ধুলা-ময়লার কারণে

এয়ার কন্ডিশনার এর কনডেনসার কয়েলে ধুলা-ময়লা জমতে পারে বিভিন্ন কারণে। তখন এসির কার্যকারিতা সম্পন্ন করার জন্য বেশি তাপ ও চাপের প্রয়োজন হয়। কারণ সেই অবস্থায় সুষ্ঠুভাবে এসি থেকে তাপ নিষ্কাশন হতে পারে না।

তাই যখন এসির পেশী শক্তির প্রয়োজন হয় তখন এর অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সমস্যা বা বিস্ফোরণের মতো ঘটনা ঘটতে পারে। তাই নিয়মমাফিক ধুলো ময়লা পরিষ্কার না করলে এর অভ্যন্তরীণ অংশগুলোতে বাধার সৃষ্টি হয়।

বৈদ্যুতিক সমস্যা

এসিতে বিভিন্ন সমস্যা বা এসিডের সৃষ্টি হতে পারে বৈদ্যুতিক গোলযোগের কারণে। তাছাড়া গুরুত্বপূর্ণ অংশ বা তার পুড়ে যেতে পারে। অনেক সময় ভোল্টেজ কম বা বেশি হতে থাকলে এসি কার্যকারিতা তাল মিলাতে পারে না তার সাথে, এতে এর ভিতরের অংশ পড়ে গিয়ে এসিড সৃষ্টি হতে পারে। সে ক্ষেত্রে সমস্যাটি সঠিকভাবে সমাধান না করলে এসির অভ্যন্তরীণ সমস্যা বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে তা এসির বিস্ফোরণ ঘটনার মতো ভয়ঙ্কর রূপ নেয়।

বিশেষ করে এই এসিডের ক্ষতিকর প্রভাব কম্প্রেসার অংশে গোলযোগ থাকলে আরো বেশি হতে পারে। তাই সে ক্ষেত্রে খেয়াল রাখা আবশ্যক। এসিতে সব সময় সঠিক কেবল ব্যবহার করতে হবে এবং সঠিক রেটিং এর সার্কিট ব্রেকার ব্যবহার করতে হবে।এসির হাইভোল্টেজ এড়াতে সার্কিট ব্রেকার প্রয়োজন, কারণ যখন অতিরিক্ত হাই ভোল্টেজ এসির ভিতর দিয়ে পাস হবে তখন তৎক্ষণাৎ এসি সার্কিট বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে।

রক্ষণাবেক্ষণের অভাব

এসি শুধু ব্যবহার করলেই হয় না বরং এসি ব্যবহারের নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম রয়েছে। যখন এসি চালু করবেন তখন ঘরের দরজা-জানালা ইত্যাদি বন্ধ রাখতে হবে যেন বাইরে বাতাস ঘরে প্রবেশ করতে না পারে। এসি দীর্ঘক্ষন চালানো অত্যন্ত ক্ষতিকর একটি দিক এতে ভিতরে ওংশে ক্রমাগত চাপ পড়তে থাকে। ভালো আর্থিং ব্যবস্থার সংযোগ দিতে হবে তাহলে বজ্রপাত কিংবা বৃষ্টির সময় সমস্যা হবে না। তাছাড়া আর্থিং ব্যবস্থা ভালো না হলে বৃষ্টি বা বজ্রপাতের সময় রেফ্রিজারেটর অফ রাখাই বুদ্ধিমানের কাজ। 

শেষ কথাঃ আমরা হয়তোবা অনেক সময় কিছু টাকা সাশ্রয় করার জন্য আমাদের নিজেদের বিপদ ডেকে নিয়ে আসি। এতে করে আমাদের লাভের চাইতে বরং ক্ষতিই বেশি হয়ে থাকে। তাই সব সময় কোন জিনিস কেনার পূর্বে তা ভালভাবে যাচাই বাছাই করে ভালো মানের কিনবেন।

এতে আপনার কিছু টাকা বেশি খেলেও আপনি সেটি স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে ব্যবহার করতে পারবেন। আর এটা এসির ক্ষেত্রে হোক কিংবা যেকোনো ক্ষেত্রেই। কারণ কিছু কিছু ছোট জিনিস আমাদের জন্য অনেক বড় বিপদ বয়ে নিয়ে আসতে পারে। তাই সব সময় সতর্ক হন আর নিজের জীবন বাচান। আজকের মত আল্লাহ হাফেজ!! সবাই ভাল থাকবেন আর সুস্থ থাকবেন। ধন্যবাদ ।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Leave a Comment