বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার উপায়

বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার উপায়

বর্তমানে দৈনন্দিন জীবন যাপনে আমরা বিদ্যুতের উপর নির্ভরশীল। খাদ্য, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা ইত্যাদি মৌলিক চাহিদাগুলো সহজ এবং আরামদায়ক ভাবে উপভোগ বা গ্রহণ করার জন্য আমরা বিদ্যুতের উপর নির্ভর করে থাকি।

যেমনঃ খাবার গরম করার জন্য ও ভালো রাখার জন্য হিটার, ওভেন ও ফ্রিজ ব্যবহার করে থাকি। যা বিদ্যুতের সাহায্যে চলে। জামা কাপড় পড়ার সময় আমরা ইস্ত্রি করে থাকি। চিকিৎসার বিভিন্ন যন্ত্রপাতি বিদ্যুতের সাহায্যে চলে। পড়ালেখা করার সময় আমাদের বৈদ্যুতিক লাইট ও ফ্যান ইত্যাদি ব্যবহার করে থাকি। এসব কারণে দিন দিন বেড়েই চলছে আমাদের বিদ্যুতের খরচের পরিমাণ।

আজকের পোষ্টে আমরা আলোচনা করবো কিভাবে বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা যায় তা নিয়ে। প্রয়োজন ছাড়া বিদ্যুৎ ধারা চালিত ইলেকট্রিক যন্ত্রপাতি বন্ধ রাখা হচ্ছে প্রধান উপায় বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার।

বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার টিপস

বাসা বাড়িতে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালত ইত্যাদি জায়গায় এনার্জি সেভিং বাল্ব ব্যবহার করতে হবে। যা ৭৫% বিদ্যুৎ করতে সাশ্রয়ী সাহায্য করবে।

আমাদের ব্যবহৃত কিছু ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি আছে যেগুলো সুইচ বা রিমোট টিপে বন্ধ করার পরও বৈদ্যুতিক পাওয়ার চালু থাকে। এই ধরনের সকল ইলেকট্রনিক যন্ত্র আনপ্লাগ করে রাখতে হবে।

কম্পিউটার ব্যবহারের সময় সচেতন হতে হবে। অপ্রয়োজনে কম্পিউটার চালু না রেখে ব্যবহারের পর তা বন্ধ রাখতে হবে। যদি খোলা রাখার প্রয়োজন পড়ে তাহলে স্লিপিং মুডে রাখতে পারেন।

আমরা কাপড় সোজা করার জন্য আয়রন বা ইস্ত্রি ব্যবহার করে থাকি। আর এটি অনেক বিদ্যুৎ টানে। তাই আগে আয়রন গরম করে পরে কাপড় আয়রন করুন। অধিক সময় ধরে আয়রন হিট দিয়ে রাখবেন না।

আমরা যারা বাড়িতে বা অফিসে এসি ব্যবহার করে থাকি। তারা দীর্ঘ সময় এসি চালু না রেখে রুম ঠান্ডা হওয়ার পর এসি বন্ধ করে রাখতে পারেন। এর ফলে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে।

ফ্রিজ ব্যবহারের সময় কিছু বিষয় খেয়াল রাখলে বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা যায়। যেমনঃ ফ্রিজের তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে রাখুন।

বিদ্যুৎ সংযোগ ত্রুটিপূর্ণ হলে অনেক সময় অতিরিক্ত বিদ্যুৎ খরচ হতে পারে। মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ সংযোগ এক্সপার্ট ধারা পরীক্ষা করে নিতে পারেন।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?