মঙ্গল গ্রহের জন্য উড়োজাহাজ

airplane

আমরা আমাদের জীবনে কতই না জানা অজানা জিনিস দেখি বা দেখে থাকি। বিভিন্ন দেশের মহাকাশ বিজ্ঞানীরা সেই অনেক বছর আগে থেকে মঙ্গল গ্রহ নিয়ে নিসার্চ করেই যাচ্ছেন সেখানে নভোযান, রোবটযান ও রকেট  সহ বিভিন্ন সরঞ্জাম পাঠিয়ে।

কিন্তু এবার অ্যালবাট্রস পাখি যেভাবে উড়ে সেই কৌশকে কাজে লাগিয়ে উড়োজাহাজ তৈরি করছেন মঙ্গল গ্রহের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু মাহাকাশ বিশেষজ্ঞরা। তাদের এই প্রকল্পের সাথে যুক্ত রয়েছেন নাসার একজন বিজ্ঞানীও।

বিজ্ঞানীরা বলেন, মঙ্গল গ্রহের বায়ুমন্ডল অনেক পাতলা যার ফলে সেখানে অনেক কঠিন ভেসে থাকা। তবে আমরা যেই উড়োজাহাজটি তৈরি করছি তা সেখানকার বায়ুশক্তি ব্যবহার করে টানা কয়েকদিন ভেসে থাকবে মঙ্গল গ্রহের আকাশে। তবে এর জন্য প্রয়োজন হবে না কোন জ্বালানির। এই উড়োজাহাজটির পাখার দৈর্ঘ প্রায় ১১ ফুট (৩.৪ মিটার)।

অ্যালবাট্রস পাখির উড়ার কৌশল ব্যবহার করে উড়োজাহাজ তৈরি

আমরা জানি, বর্তমানে কয়েকটি নভোযান ও রোবটযান কয়েকটি এলাকায় অনুসন্ধান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে ও ছবি তুলছে। রোবটযান দিয়ে বায়ুমন্ডল ও আগ্নেয়গিরির মতো ভূতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্যগুলোর মহাকাশ ও ভূপৃষ্টে পর্যবেক্ষন সম্ভব নয়। তবে অ্যালবাট্রস পাখির মতো দেখতে এই উড়োজাহাজটিকে কাজে লাগিয়ে অনেক অজানা তথ্য জানা সম্ভব হবে।

বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, এই উড়োজাহাজটি অ্যালবাট্রস পাখির মতো গতিশীল উড্ডয়ন কৌশল ব্যবহার করে উচ্চতার সঙ্গে বাতাসের গতির পরিবর্তনের সুবিধা নেবে এটি। যার ফলে এই উড়োজাহাজটি জ্বালানি ছাড়াই আকাশে ভেসে বেড়াবে দীর্ঘ সময়।

বর্তমানে কম উচ্চতায় এই উড়োজাহাজটিকে চালিয়ে পরিক্ষা করে দেখছেন। তারা ১৫ হাজার ফুট উচ্চতায় পরীক্ষা করে দেখবেন উড়োজাহাজটিকে ১৫ই আগষ্ট।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?