ইভ্যালি গ্রাহকদের দায় মেটানো প্রায় অসম্ভব

ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম ইভ্যালির সাভারের দুটি ওয়্যারহাউজে ২৫ কোটি টাকার পণ্য আছে। আর পাওনাদারদের কাছে প্রতিষ্ঠানটি দেনা আছে ৪০৩.৮০ কোটি টাকা। উদ্ধৃত অর্থ দিয়ে যা পরিশোধ করা কম্পানিটির পক্ষে প্রায় অসম্ভব।

শুক্রবার ইভ্যালীর কার্যালয়ে বোর্ড সদস্যদের এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

তারা বলেন পিংসিটি গুদামে ১৬ কোটি টাকার ২৬৫৯টি পণ্য এবং বালিয়াপুর গুদামে ৯ কোটি টাকার ১৭৩৬টি পণ্য রয়েছে।

বর্তমানে জামিনে থাকা চেয়ারম্যান শামিমা নাসরিণ এবং কারাবন্দি ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ রাসেল সম্প্রতি হাইকোর্টকে বলেন গ্রাহকদের দায় মেটাতে তারা বিনিয়োগ জোগাড় করতে পারবেন।

গত বছর ১৫ সেপ্টেম্বরের জালিয়াতি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মোহাম্মদ রাসেল ও তার স্ত্রী স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন এক গ্রাহক।

মামলা দায়েরের পর দিন রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে গ্রেফতার করে র্যাব।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?