টাইসনের কামড়ে বিচ্ছিন্ন হলিফিল্ডের কান

মাইক টাইসনের কামড় কান্ডের ২৫ বছর হয়ে গেল। এটা শুধু বক্সিং খেলা নয় সমগ্র ক্রিয়া ইতিহাসের বিতর্কিত একটি বিতর্কিত ঘটনা। ২৮ জুন, ১৯৯৭ সালে হলিফিল্ডের সঙ্গে একটি ম্যাচে তাকে কামড় দিয়ে বসেন টাইসন।হলিফিল্ডের ডানপাশের কানে কামড় দিয়ে কানের একটা অংশ ছিড়ে ফেলেন টাইসন। কানের ছিড়া অংশটা রিংয়ে পড়ে ছিল। সেই ঘটনার ২৫ বছর পূর্তি হলো গত মঙ্গলবার।

এ ঘটনার জন্য তাকে জরিমানা এবং তার লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছিল। এগুলো ছাড়াও আরো কিছু শাস্তি পেতে হয়েছিল তাকে। ‘The Badest Man on the Planet’ নাম দেয়া হয়েছিল টাইসনকে। 

টাইসন তার বক্সিং ক্যারিয়ারে প্রথমবার হারের মুখ দেখেন ১৯৯০ সালে। টোকিওতে বক্সার বাস্টার ডগলাস তাকে হারায়। এটি ছিল বক্সিং ইতিহাসের অন্যতম বড় অঘটন। এরপর ১৯৯৩  সালে ধর্ষণ মামলায় জেলে যেতে হয় টাইসনকে। জেল থেকে ১৯৯৫  সালে ছাড়া পাওয়ার একবছর পরে পেশাদার বক্সিংয়ে দ্বিতীয়বার হারেন টাইসন। লাস ভেগাসে MGM অ্যারেনায় হলিফিল্ড তাকে ১১তম রাউন্ডে নক আউট করে।

আর এই ম্যাচ হারার পর থেকে টাইসনকে প্রতিশোধের নেশায় পেয়ে বসেছিল। রিয়েল ডিল নামে খ্যাতি পাওয়া হলিফিল্ডের সাথে ২৮জুন, ১৯৯৭ সালে রি-ম্যাচ আয়োজন করা হয়। আর এই ম্যাচেই কামড় কাণ্ডটি ঘটান প্রতিশোধের নেশায় মত্ত টাইসন। যার ফলে এই ম্যাচকে ‘দ্য বাইট ফাইট’ নামে নামকরণ করা হয়।

সেই ম্যাচে প্রথম তিন রাউন্ড এ যেতে হলিফিল্ড। পরে টাইসন হতাশায় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে হলিফিল্ডের কানে কামড় বসিয়ে দেন। রিংয়ে লড়ায়ের মধ্যে কেউ কাউকে কামড় বসাতে পারে এটা বিশ্বাসই হচ্ছিল না হলিফিল্ডের। হলিফিল্ড তখন রেফারিকে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ করেন। রেফারি ঘটনার সত্যতা খুঁজে পেয়ে সাথে সাথে টাইসনকে লড়াইয়ের অযোগ্য এবং হলিফিল্ডকে জয়ী ঘোষণা করেন।

সেখানে উপস্থিত থাকা দর্শকরা প্রথমে কিছু বুঝে উঠতে পারেনি। কিন্তু যখন বড় স্ক্রিনে স্লো মোশন ভিডিওতে ঘটনাটি দেখানো হয় তখন পুরো পরিস্থিতিটা দর্শকরা বুঝে নেন।

কামড় দেয়ার ঘটনার জন্য টাইসনকে শাস্তি পেতে হয় এবং তার লাইসেন্স বাতিল করা হয়। কিন্তু ঘটনার দুই বছর পর ১৯৯৯ সালে তিনি তার লাইসেন্স ফেরত পান। সর্বকালের অন্যতম সেরা বক্সার টাইসনের জীবনে এই কামড়ের ঘটনাটি কালো দাগ হয়ে বসে যায়। এখনো টাইসনের কামড় কান্ড নিয়ে সমালোচনা হয়।

হলিফিল্ডের কানের খন্ডিত অংশটা কোথায় হারিয়ে যায় 

কিন্তু হলিফিল্ডের কানের অংশটুকুর কি হয়েছিল তা এখনো কেউ জানে না। সাবেক বক্সার এবং হলিফিল্ডার ট্রেনার হলমার্ক এবং বেশ কিছু সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে হলিফিল্ডকে হাসপাতালে নেওয়ার সময় খন্ডিত কানের সেই অংশটুকু হারিয়ে যায়। আবার কিছু সংবাদমাধ্যমের ভিন্ন মত রয়েছে। কারো মতে এনজিএম অ্যারেনায় কর্মরত একজন কর্মচারী হলিফিল্ডের কানের অংশটুকু বরফের মধ্যে রেখেছিলেন। 

তারপর সেই লোক লকার রুমের এক কর্মীর কাছে এটি হস্তান্তর করেন যেন হাসপাতালে নিয়ে তা হলিফিল্ডের কানে জোড়া লাগানো যায়। হাসপাতালের চিকিৎসকের কাছে নাকি কানের সেই অংশটুকু পৌঁছেছিল। কিন্তু এরপর কানের অংশটুকু কোথায় এবং কিভাবে হারিয়ে গেছে তা তো জানে না। অনেকেই বলছেন অ্যাম্বুলেন্স থেকেই নাকি কাটা পড়া কানের অংশটুকু হারিয়ে যায়। 

চিকিৎসক হলিফিল্ডের কানে অস্ত্রোপচার করতে হয়েছিল। আটটি সেলাইয়ের প্রয়োজন হয় কামড়ে কতটি ঠিক করার জন্য। কিন্তু কানের কেটে যাওয়া অংশটি আর জোড়া লাগানো যায়নি।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?