ইউনিক বিজনেস আইডিয়া

ইউনিক বিজনেস আইডিয়া

বর্তমান বাজারে চাকরি পাওয়া অনেক কঠিন। অনেক ক্ষেত্রে চাকরি নেই বললেই চলে। আর তাই আমরা অনেকেই ব্যবসা করতে চাই। 

প্রচলিত ব্যবসার বাইরে ইউনিক ব্যবসা করতে চাই যেন অধিক আয় করা যায়। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই ইউনিক বিজনেস আইডিয়া সম্পর্কে ধারণা নেই।

নতুন নতুন ইউনিক ব্যবসা নিয়ে আমাদের অনেকের মাঝে আগ্রহ রয়েছে। ইউনিক বিজনেস কি কি রয়েছে সেগুলো এই টপিকে বিস্তারিত জানানো হবে।

ইউনিক বিজনেস বা আনকমন ব্যবসা অন্যান্য সাধারণ ব্যবসা থেকে একটু বেশি সাফল্য পাওয়া যায়।

চলুন কয়েকটি ইউনিক ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক

অনলাইনে খাবারের হোম ডেলিভারির ব্যবসা

কর্মব্যস্ততার কারণে আমাদের বাড়িতে রান্না করার সব সময় সুযোগ হয় না। আবার অনেকে হোটেলের খাবার খেতে পছন্দ করেন। আর এই ধরনের মানুষদের জন্যই খাবারের হোম ডেলিভারি ব্যবসা শুরু হয়েছিল। 

আপনি আপনার বাড়িতে বিভিন্ন ধরনের মজাদার খাবার রান্না করতে পারেন। এরপর বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে খাবারের ছবি বা ভিডিও আপলোড দিতে পারেন। 

তারপর সেখান থেকে কাস্টমাররা অর্ডার দিলে সে খাবারগুলো হোম ডেলিভারি দিয়ে আয় করতে পারেন। বিশেষ করে যারা অন্য শহর থেকে এসে ঢাকা শহরের বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। 

আর সকল শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন রান্না করে খেতে চান না। আর সেজন্যই তারা এসব হোম ডেলিভারি খাবারের উপর নির্ভরশীল। তাই কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় এ ব্যবসা করলে ভালো করতে পারবেন।

ট্যুর গাইড এর ব্যবসা

আমাদের দেশের মানুষ ভ্রমণ প্রিয় মানুষ। তারা বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে যেতে ভালোবাসেন। আর টুরিস্টরা অনেক সময় ট্যুর গাইড এর উপর নির্ভর হয়ে থাকে। 

একজন টুরিস্টের সম্পূর্ণ ট্যুর প্ল্যান টি আপনি করতে পারেন। এছাড়া চাইলে আপনি টুরিস্ট এর ফ্লাইট বুকিং, ট্রেনের টিকেট বুকিং, হোটেল বুকিং ইত্যাদি দায়িত্ব আপনি নিয়ে করে দিতে পারেন। 

স্কুল, কলেজ, অফিস ট্যুর করাতে পারলে নিয়মিত ব্যবসা পাওয়া সম্ভব। এর জন্য আপনাকে নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে হবে। এরপর সেখানে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানের প্রচার-প্রসার করতে হবে। 

বিভিন্ন জায়গার হোটেলের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরি করতে হবে। ট্রাভেল এজেন্ট কমিশন এর রেট জেনে নিতে হবে। 

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা

আমাদের যাদের চিন্তা ভাবনা, বুদ্ধিদীপ্ত সৃজনশীল তারা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসায় ভালো করতে পারবেন। কারণ আপনাকে ইভেন্ট সাজাতে হবে সবার থেকে আলাদা ও আকর্ষণীয়। অর্থাৎ পরিকল্পনার মধ্যে থাকতে হবে নতুনত্ব।

এছাড়া আপনার বিভিন্ন মানুষের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হতে হবে। এর জন্য আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করতে পারেন। বিভিন্ন মানুষকে কনভিন্স করার জন্য আপনাকে সুন্দরভাবে গুছিয়ে কথা বলতে হবে। 

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা করার জন্য আপনাকে কাজের জন্য দক্ষ লোক নিয়োগ দিতে হবে। অদক্ষ লোক দিয়ে কাজ করালে আপনার বদনাম বা ক্ষতি হতে পারে। 

আর আপনাকে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে ধারণা নিয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে। তাহলে আপনি এই ব্যবসায় অনেক ভালো করবেন।

মোবাইল রিপেয়ারিং ব্যবসা

বর্তমান যুগে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে না এমন মানুষ নাই বললেই চলে। আর মোবাইল ব্যবহার করার সময় কোন না কোন সময় এগুলো খারাপ হয়। 

তার প্রথমে আপনাকে মোবাইল রিপেয়ারিং করার কাজটি শিখে নিতে হবে। তিন থেকে পাঁচ হাজার টাকার মধ্যে মোবাইল রিপেয়ারিং কোর্স করতে পারবেন। 

এছাড়া ইউটিউব এর ভিডিও দেখে মোবাইল রিপেয়ারিং এর কাজ শিখতে পারেন। এরপর আপনার এলাকায় যেখানে লোক সমাগম বেশি অথবা বাজারে একটি দোকান দিয়ে বসতে পারেন। 

এরপর মোবাইল রিপেয়ারিং করার যন্ত্রপাতি কিনতে হবে। আর এভাবে বিভিন্ন মানুষের মোবাইল রিপেয়ারিং করে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। 

মোবাইল রিপেয়ারিং করার পাশাপাশি দোকানে মোবাইল এর টুকিটাকি জিনিস যেমনঃ চার্জার, হেডফোন, ব্যাক কভার, কেসিং ইত্যাদি বিক্রি করতে পারেন।

অনলাইনে মাছ বিক্রির ব্যবসা

চাকরি ও ব্যবসার কারণে আমাদের অনেকের পক্ষে বাজারে গিয়ে বাজার করা সম্ভব হয় না। আর এই কর্মব্যস্ততার কারণে অনলাইনে মাছ বিক্রি ব্যবসা হতে পারে ইউনিক বিজনেস আইডিয়া। 

এর জন্য আপনি চাইলে নিজের এলাকার মাছ চাষ করতে পারেন অথবা মাছের আরত থেকে কিনে মাছ সরবরাহ করতে পারেন। এরপর যাদের নিত্যদিনের মাছ দরকার হয় তাদের কাছে মাছ বিক্রি করতে পারেন। এভাবে আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

বেকারি ব্যবসা

বেকারি ব্যবসা খুবই লাভজনক এবং দীর্ঘমেয়াদী একটি ব্যবসা। বেকারি ব্যবসার জন্য বেশি পুঁজির দরকার পড়ে না। তাই আপনি খুব সহজেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। 

বেকারিতে বিভিন্ন ধরনের পণ্য যেমন টোস্ট বিস্কুট, পাউরুটি, কেক ইত্যাদি তৈরি করতে পারেন। এরপর সেগুলো বিভিন্ন দোকানে দোকানে গাড়ির মাধ্যমে বিক্রি করতে পারেন। 

একটি ইউনিয়ন প্রায় ১০-১৫ টি গ্রাম নিয়ে তৈরি হয় আর প্রতিটি গ্রামে মিনিমাম দুটি করে দোকান থাকে। আর গ্রামের এসব দোকানগুলোতে সবাই বেকারির জিনিসপত্র নিয়ে থাকে। সুতরাং বুঝতেই পারছেন বেকারি ব্যবসা কতটা ভালো একটি ব্যবসা।

ফাস্ট ফুডের ব্যবসা

বর্তমান সময়ে ফাস্টফুডের ব্যবসা একটি ভালো ব্যবসা। আপনি যদি ভাল রান্না করতে পারেন তাহলে আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। 

বার্গার, নুডলস, রোল, চিকেন ফ্রাই ইত্যাদি খাবারের আইটেম তৈরি করে সেগুলো বিক্রি করতে পারেন। ফাস্ট ফুডের ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার দরকার হবে লোক সমাগম বেশি হয় এরকম একটি জায়গা। 

সেখানে আপনি একটি ছোট দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। আপনি যদি খুব সুস্বাদু ও আকর্ষনীয় খাবার তৈরি করতে পারেন তাহলে এই ব্যবসা করে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারবেন। কারণ ফাস্ট ফুড এমন একটি খাদ্য যা সবাই খেতে পছন্দ করে।

হোম টিউশন

আপনি যদি কোন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হয়ে থাকেন তাহলে আপনি হোম টিউশন করে প্রতিমাসে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারবেন। বর্তমান সময়ে সব সচেতন অভিভাবক তাদের সন্তানদের জন্য টিউশন ব্যবস্থা করে থাকে।

গ্রাম বা শহর উভয় জায়গায় হোম টিউশন এর ভালো চাহিদা রয়েছে। আর সব জায়গায় ভালো শিক্ষকের অভাব। আপনি সেখানকার বাচ্চাদের ভালোভাবে টিউশনি করিয়ে তাদের ভালো রেজাল্ট করার মাধ্যমে সম্মান এবং অর্থ দুইটাই উপার্জন করতে পারবেন। বাড়িতে গিয়ে টিউশন করালে অতিরিক্ত ফি নিতে পারবেন।

হাঁস মুরগি পালন

বর্তমান সময়ে হাঁস-মুরগি পালনের ব্যবসা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠানে খাবারের আইটেমে মুরগি মাংস থাকেই। আমাদের দেশে মুরগির মাংস ও ডিমের প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

আপনি চাইলে আপনার বাড়িতে ছোট একটি মুরগির খামার দিতে পারে। প্রথমে কম মুরগি নিয়ে শুরু করে আস্তে আস্তে মুরগির সংখ্যা বাড়াতে পারেন। এছাড়া আপনি খুব সহজে হাঁস পালন করতে পারেন।

আপনার বাড়ির পাশে পুকুর অথবা খাল-বিল থাকলে সেখানে দিনের বেলা হাস ছেড়ে দিয়ে এবং রাতে হাঁসের থাকার জায়গা তৈরি করে হাঁস পালন করতে পারেন। আপনি হাঁসের মাংস ও হাঁসের ডিম বিক্রি করতে পারেন।

বিউটি পার্লার ব্যবসা

বিউটি পার্লার ব্যবসা মহিলাদের জন্য খুবই উপযোগী একটি ব্যবসা। কম পুঁজি দিয়ে অধিক আয় করা সম্ভব বিউটি পার্লারের মাধ্যমে। আপনি আপনার বাড়িতে অথবা আপনাদের এলাকার বাজারে বিউটি পার্লার খুলতে পারেন।

বিউটি পার্লার খোলার পূর্বে আপনাকে বিউটিশিয়ান কোর্স করতে হবে। ব্যবসা শুরু করতে পারেন। বর্তমান সময়ে সবাই সাঁজতে পছন্দ করে।

যেকোনো অনুষ্ঠানে যাওয়ার পূর্বে মেয়েরা বিউটি পার্লারে সাঁজতে যায়। বর্তমানে বিউটি পার্লারের অনেক চাহিদা রয়েছে। যার কারণে বিউটি পার্লার ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা হয়ে উঠেছে।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?