টাকা ছাড়া ব্যবসা করার উপায়

টাকা ছাড়া ব্যবসা করার উপায়

ব্যবসা করতে টাকা প্রয়োজন কিন্তু এমন কিছু ব্যবসা আছে যেগুলো করতে টাকার প্রয়োজন পরেনা। ব্যবসা করতে সাহস লাগে।

অনেকেরই তো টাকা আছে কিন্তু সবাই কি ব্যবসা করে সফল হতে পেরেছে। আমাদের আশেপাশে অনেকেই আছে যারা শূন্য পকেট থেকে এখন কোটি টাকার মালিক হয়ে গেছে। 

আর এর জন্য তারা শ্রম এবং মেধা বিনিয়োগ করে সফল হয়েছে। তাদের দিকে লক্ষ্য করলে দেখবেন তারা প্রচুর ধৈর্য এবং পরিশ্রম করে সফলতা অর্জন করেছে।

আপনাকে সৎ উপায়ে প্রচুর পরিশ্রম করে যেতে হবে তাহলে সফল হতে পারবেন। আজকের আর্টিকেলে আমরা টাকা ছাড়া ব্যবসা করার উপায় নিয়ে আলোচনা করবো।

বর্তমান সময়ে অনেক প্রফেশনাল ব্যবসা আছে যেগুলো টাকা ছাড়া শুরু করা যায়। শুধু নিজের জ্ঞান, দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতাগুলোকে ঠিকমতো কাজে লাগাতে হবে।

টিউশন ব্যবসা

কয়েকটি বিষয়ের উপর দক্ষতা থাকলে আপনি টিউশনি করিয়ে মাসে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। আপনি যদি ভালোভাবে শিক্ষার্থীদের পড়াতে পারেন তাহলে আপনার কাছে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের পড়াবেন। 

বর্তমানে পরিস্থিতির কারণে অনেকেই কোচিং সেন্টারের বা বাসায় গিয়ে পড়তে চায় না। তাই আপনি হোম টিউশন অথবা অনলাইন টিউশন করাতে পারেন।

কনটেন্ট রাইটিং 

বর্তমান সময়ে অর্থ উপার্জনের জন্য কনটেন্ট রাইটিং লিখার ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা। এই বিজনেস শুরু করার জন্য বেশি টাকার প্রয়োজন হবে না শুধু একটি কম্পিউটার বা স্মার্টফোন হলেই হবে। 

আপনার মধ্যে যদি কোন কিছু লেখার প্রতিভা থাকে তাহলে কনটেন্ট রাইটিং আপনার জন্যই। আজকাল অনেকেই নিজের ওয়েবসাইট বা প্রতিষ্ঠানের জন্য টাকার বিনিময়ে কনটেন্ট লেখায়। 

এছাড়া নিয়মিত বিভিন্ন ব্লগ বা নিউজ পোর্টাল এর জন্য আর্টিকেল বা কনটেন্ট লিখা হয়। আপনি তাদের সাথে যোগাযোগ করে ঘরে বসে কনটেন্ট লিখে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ফিটনেস এন্ড ইয়োগা ট্রেইনার

বর্তমান সময়ে আমরা সবাই নিজেদের ফিট ও স্লিম রাখতে চাই। আর নিজেদের ফিট রাখার জন্য আমরা সবাই কমবেশি ব্যায়াম করতে জিমে যাই। আর জিমগুলোতে ফিটনেস ট্রেইনার থাকে যারা আমাদেরকে ব্যায়াম করতে সাহায্য করে। 

বর্তমানে ইয়োগা ট্রেইনারদের অনেক চাহিদা রয়েছে। তাই আপনি ফিটনেস এন্ড ইয়োগা কোর্স করার মাধ্যমে এই পেশায় যুক্ত হতে পারেন। আর আপনার কাছে যদি পুঁজি থাকে তাহলে আপনি নিজে একটি জিম সেন্টার খুলে ব্যবসা করতে পারেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইনার

আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে এই পেশার মাধ্যমে আপনি মাসে অনেক টাকার সেলারি তে কাজ করতে পারবেন। এটি খুবই ক্রিয়েটিভ একটি পেশা। 

এছাড়া গ্রাফিক্স ডিজাইন করে আপনি ঘরে বসে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়া গ্রাফিক্স ডিজাইন তৈরি করে সেগুলো অনেক সাইটে বিক্রি করে আয় করা যায়।

চাকরি করা

চাকরি করার মাধ্যমে আমরা মাসে মাসে অনেক টাকা বেতন নিয়ে থাকি। সেখান থেকে টাকা জমিয়ে নিজের ব্যবসা শুরু করতে পারি। ব্যবসার জন্য যেন লোন নিতে না হয় সেজন্য টাকা জমাতে হবে। 

নিজের মেধা খাটিয়ে পরিশ্রম করে ব্যবসাটাকে আস্তে আস্তে বড় করতে হবে। ব্যবসায় সফলতা অর্জন করতে পারলে চাকরি ছেড়ে দিয়ে আরামের জীবন যাপন করতে পারবেন। কারণ চাকরি করতে হয় অন্যের অধীনে আর ব্যবসায় আপনি নিজেই বস। 

এফিলিয়েট মার্কেটিং

এফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি অংশ। এই মার্কেটিংয়ে অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানির পণ্য বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করা যায়। আপনি ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে এই কাজটি করতে পারবেন। 

আপনি চাইলে নিজের একটি ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল খুলে সেখানে বিভিন্ন পণ্যের প্রচার প্রচারণা চালিয়ে কোম্পানি থেকে কমিশন পেতে পারেন। 

প্রথমে আপনি বাজারের পণ্য গুলো সম্পর্কে আপনার ওয়েবসাইটে লিখবেন বা ভিডিও করে সেগুলো ইউটিউব চ্যানেলে ছাড়বেন। এর ফলে পণ্য বেচাকেনা হলে আপনি ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

টাকা খরচ না করেই শুধু নিজের স্কিল এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে টাকা উপার্জন করা সম্ভব। তবে ব্যবসা করতে যে একেবারেই টাকা লাগে না সেরকমটা নয় অল্প কিছু টাকা লাগবে।

যেমন স্মার্টফোন বা ল্যাপটপ কেনার জন্য, ইন্টারনেট সার্ভিস চার্জ ইত্যাদি বিষয়ের জন্য তো কিছু টাকা লাগবেই।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?