পেট ব্যাথা কমানোর উপায়

পেট ব্যাথা কমানোর উপায়

আমাদের মধ্যে সকলেই কম বেশি এবং পরিচিত সাধারণ সমস্যা পেট ব্যথা। তবে  এটি কোন গুরুতর সমস্যা নয়, এবং এর লক্ষণ তাড়াতাড়ি চলে যায়। এটি হওয়া বিভিন্ন রকম কারণ থাকতে পারে।

এ সমস্যাটি ছোট হলেও এটি একটি খুব বিরক্তিকর বিষয়। তাই এটিকে অবহেলা না করে আপনাকে বেছে নিতে হবে এর সঠিক সমাধানের উপায়। 

অযথা কোন ব্যাথা নাশক ঔষধ খাবেন না। কারণ আমরা জানি ব্যথানাশক ঔষধের অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে, যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। আর খুব বেশি জরুরি না হলে ব্যথানাশক ঔষধ সেবন করা উচিত নয়।

এর জন্য রয়েছে অনেক প্রাকৃতিক সমাধান যা আপনার পেট ব্যথাকে কমিয়ে আনতে অনেকটাই সহায়তা করবে।

আজ আমরা পেট ব্যাথা কমানোর কিছু প্রাকৃতিক উপাদান নিয়ে আলোচনা করব, যে আপনার পেট ব্যথা নিরাময়ে খুবই সাহায্য করবে।

আদা দিয়ে তৈরিকৃত চা

যাকে আমরা আদা চা ও বলে থাকি। সেই প্রাচীনকাল থেকেই পেট ব্যথা কমাতে বা বমি ভাব দূর করতে আদা বা আদা চায়ের কোন তুলনা নেই।

এতে এন্টিইনফ্ল্যামেটরি ও প্রদাহ বিরোধী গুন থাকায় এটি ব্যথা কমাতে সহায়ক হয়ে থাকে। তাই পেট ব্যথা কমাতে প্রাকৃতিক উপাদান হিসেবে আদা কুচি করে চিবিয়ে খেতে পারেন বা আদা চা বানিয়ে খেতে পারেন।

কলা ও আপেল ফল

কলা ও আপেল পেট ব্যথা কমাতে খুবই সহায়ক ভূমিকা পালন করে। কারণ এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। যার কারণে এটি পেট ব্যথা কমাতে খুবই সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

পুদিনা পাতা

পুদিনা পাতা পেট ব্যথা ও বমি ভাব কমাতে অনেক সহায়ক একটি প্রাকৃতিক সমাধান। এর রয়েছে প্রাকৃতিক ব্যথানাশক বৈশিষ্ট্য।

তাই পেট ব্যথা কমাতে পুদিনাপাতা চায়ের সঙ্গে মিশিয়ে বা চিবিয়ে খেতে পারেন। যে আপনার পেট ব্যথা কমাতে ভূমিকা পালন করবে। এটা সব সময় হাতের নাগালে না পাওয়ার কারণে অনেক সময় ব্যবহার করা যায় না।

হিটিং প্যাড

বাংলাদেশের পেট ব্যথা কমাতে হিটিং প্যাড খুবই জনপ্রিয়। নতুন অনেকে ঘরে এটি পাওয়া যায়। হিটিং প্যাড এ হালকা গরম পানি নিয়ে পেটে ধরে রাখলে অনেকটা স্বস্তি পাবেন।

তবে এতে অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহার করা যাবে না যা ক্ষতি কারণ হতে পারে। অবশ্যই হালকা গরম পানি নিয়ে এই হিটিং প্যাড এর ভিতর সেটি পেটের উপর আলতো ভাবে বা ব্যথার স্থানে ধরে রাখতে হবে। তাহলে আস্তে আস্তে ব্যাথা কমে আসবে।

ভাত

ভাতের মধ্যে যেহেতু কোন প্রকার মসলা লবণ থাকে না তাই এটি পেট ব্যথা নিরাময়ে অনেক সহায়তা করে। কারণ ভাত পেট ঠান্ডা রাখতে সহায়তা করে। 

তবে চেষ্টা করেন ভাতের সাথে হালকা পাতলা জাতীয় কিছু খেতে। 

ভাতের সাথে মসলাজাতীয় খাবার পরিহার করুন এতে আপনার পেট আরো খারাপ হতে পারে।

উপরের নিয়ম গুলো যেকোনো একটি নিয়ম মানার চেষ্টা করুন পেট ব্যথা হলে। তাহলে দেখবেন আপনি অবশ্যই ভালো ফলাফল পেয়েছেন। আর পেট ব্যাথা হলে তেমন ঘাবড়ানোর কিছু নেই, এটা অনেক সময় অনেক কারণে হতে পারে আবার চলে যায়।

যদি পেট ব্যথা অনেক দিন পর্যন্ত না যায় বা অতিরিক্ত মনে হয় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ না করে অযথা কোনো ব্যথা নর্সক কোন ঔষধ সেবন করবেন না। এতে আপনি শরীরে বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?