কিভাবে লম্বা হওয়া যায়

পৃথিবীতে বিভিন্ন ধরনের মানুষ বাস করে। ভিন্ন ভিন্ন মানুষের আকৃতি বেশ ভিন্ন ভিন্ন। আমরা সকলেই লম্বা মানুষ পছন্দ করি। আর তাই কিভাবে লম্বা হওয়া যায় এর জন্য মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই।

আমরা অনেকেই মনে করি বংশগতভাবে আমরা যতটুকু লম্বা হই ঠিক ততটাই লম্বা হবো। আর একটুও হাইট বা উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে না। 

আমাদের এই ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। আমাদের দৈহিক বৃদ্ধির ৮০ ভাগ নির্ভর করে বংশের উপর বাকি ২০ ভাগ নির্ভর করে আমাদের চলাচল ও পরিবেশ এবং কিছু নিয়ম কানুনের উপর।

কিভাবে লম্বা হওয়া যায় পর্বে লম্বা হওয়ার জন্য কিছু উপায় নিচে বর্ণনা করা হলো

শরীরচর্চা বা ব্যায়াম

শরীরচর্চা বা ব্যায়াম আমাদের শরীরকে যেমন ভালো রাখতে সাহায্য করে ঠিক তেমনি আমাদের শরীরের উচ্চতা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে। 

নিয়মিত শরীরচর্চা শরীরের বৃদ্ধি সংক্রান্ত হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি করে। শরীরচর্চা আমাদের চেহারাকেও আকর্ষণীয় করে তুলে।

পুষ্টিকর খাবার

পুষ্টিকর খাবার শরীরের উচ্চতা বৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সবুজ শাকসবজি, দুধ, চর্বিহীন মাংস বাদাম ইত্যাদি খাবার নিয়মিত খেতে হবে। এইসব খাবার থেকে প্রাপ্ত প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও পুষ্টি আমাদের উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।

চিন্তা মুক্ত থাকা

প্রতিদিনই বিভিন্ন কাজের চাপে আমরা বিভিন্ন চিন্তায় থাকি। যার ফলে আমাদের হরমোনের মাত্রা কমে যায়। ফলে আমাদের শারীরিক বৃদ্ধিতে বাধা সৃষ্টি হয়। আমাদের শারীরিক বৃদ্ধির ক্ষেত্রে মানসিক চাপ বাধা সৃষ্টি করে। তাই আমাদের মানুষের চিন্তা মুক্ত থাকতে হবে।

পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম

প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম আমাদের দৈহিক উচ্চতা বৃদ্ধি করে। ঘুম আমাদের মনকে শান্ত রাখে এবং উচ্চতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমাদের লম্বা হতে হলে কমপক্ষে প্রতিদিন আট ঘণ্টা ঘুমাতে হবে।

পানি পান করা

পানি আমাদের শরীর ও মনকে চাঙ্গা করে তোলে। প্রতিদিন আমাদেরকে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে কারণ পানি শারীরিক উচ্চতা বৃদ্ধিতে অবদান রাখে।

দুধ পান করা

লম্বা হওয়ার জন্য আমাদের দুধ পান করতে হবে কারণ দুধে রয়েছে ক্যালসিয়াম। ক্যালসিয়াম আমাদের শরীরের হাড়ের বৃদ্ধি ঘটায়।

ভিটামিন ডি

আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি এর পরিমাণ বাড়াতে হবে। আর ভিটামিন ডি এর অন্যতম একটি উৎস হচ্ছে সূর্যের আলো। দৈনিক ঘণ্টাখানেক রোদের মধ্যে হাঁটলে আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি বৃদ্ধি পাবে। ভিটামিন ডি আর বিকাশে সাহায্য করে।

ঠিক মত বসা

চলাফেরা ও বসার সময় আমাদের মেরুদন্ড সোজা হয়ে বসতে হবে এতে করে শরীরে উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে।

হাসিখুশি থাকা

আমাদের সবসময় হাসিখুশি থাকতে হবে এর ফলে আমাদের মন ভালো থাকবে। নিজের প্রতি নিজের কনফিডেন্স রাখতে হবে । কনফিডেন্স আমাদের মন ও শরীরকে ইতিবাচক করে তোলে যার ফলে শরীর কিছুটা উচ্চতা বৃদ্ধি পায়।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?