চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত কি

ইতিহাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত। আমরা অনেকেই চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত সম্পর্কে জানিনা। কিন্তু যারা ইতিহাস নিয়ে পড়েছি তারা এ সম্পর্কে কমবেশি জানি। জেনে নেয়া যাক চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত কি।

জমিদার লর্ড কর্নওয়ালিস যখন ভারতের গভর্নর নিযুক্ত হন তার শাসনকালে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত কার্যকর হয়। তবে নরেন্দ্র সিংহের মতে কর্নেলকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের প্রবর্তক পুরোপুরি বলা না গেলেও সীমিত অর্থে বলা যেতে পারে। 

বাংলাদেশের জমিদারদের সঙ্গে ইংল্যান্ডের অনুকরণে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করে। তাদের জমির মালিকানা স্বত্ব দিতে চেয়েছিলেন কর্নওয়ালিস। অনেক বিষয় আলোচনার পর কোম্পানির পরিচালক সবার অনুমোদন নিয়ে কর্নওয়ালিস তার সময়কার দশ বছরকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত রূপ ঘোষণা করেন। 

চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত ক্ষেত্রে অনেকগুলো শর্ত জুড়ে দেয়া হয় 

জমিদাররা বংশানুক্রমে জমির মালিকানা স্বত্ব লাভ করে কর্নওয়ালিসের আমলে। 

নির্দিষ্ট দিনের সূর্যাস্তের আগে জমিদারদের সরকারকে নির্ধারিত রাজস্ব বুঝিয়ে দিতে হতো। এক্ষেত্রে কেউ ব্যর্থ হলে জমিদারি বা কিছু সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হতো। পরে জমিদারদের রাজস্বের পরিমাণ সারা জীবনের জন্য নির্দিষ্ট করা হয়। 

জমিদারের ইচ্ছা অনুযায়ী জমিদারি বিক্রয়, বন্ধক হস্তান্তর করতো সরকারের বিনা অনুমোদন ছাড়াই কর্নওয়ালিসের অধীনে।

ইংরেজ বণিক কোম্পানির অর্থনৈতিক স্বার্থ লাভের জন্য কর্নওয়ালিস চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করেছিলেন। ইংরেজ বণিক কোম্পানির স্বার্থ রক্ষায় ছিল তার মূল উদ্দেশ্য। 

সেই সময় ইংরেজ কোম্পানির অনেক অর্থের দরকার ছিল আর কর্নওয়ালিস চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত দ্বারা বাংলার রাজস্ব দিয়ে সেই অর্থের অনেকটা যোগান দিয়েছিল। 

চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের দ্বারা জমিদারেরা জমির মালিক হয়ে যায়। জমির উৎপাদন এবং মূল্য বৃদ্ধি থেকে পাওয়া সমস্ত অর্থ তারা ভোগ করে। আর এসব কাজের জন্য তাদের সরকারের কোনো অনুমতি নিতে হতো না।

চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের জন্য কৃষকেরা তাদের বন-জঙ্গল চারণভূমি ইত্যাদি হারাতে শুরু করে এবং তারা প্রতিনিয়ত নির্যাতিত শোষিত হতে থাকে। 

তারা আস্তে আস্তে কৃষকদের উপর খাজনা বৃদ্ধি করে দেয়। এই ভাবেই বাংলায় এক নতুন জমিদার শ্রেণী করে ওঠে। জমিদারদের সকল দায়িত্ব তাদের নায়েব গোমস্তাদের হাতে দিয়ে নতুন রাজধানী কলকাতায় আরাম-আয়েশে জীবন-যাপন শুরু করে। আর এদিক দিয়ে কৃষকদের ওপর প্রতিনিয়ত অত্যাচার ও শোষণ বৃদ্ধি পাচ্ছিল।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?