ক্যাশ সার্ভার কি

ক্যাশ সার্ভার কি এবং এর প্রয়োজনীয়তা অবশ্যই আমাদের প্রত্যেকেরই জানা উচিত যেহেতু আমরা প্রায় সবাই এখন ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি।

এ ধরনের মোটামুটি জটিল বিষয়গুলো বোঝার জন্য যদি আমি কোন উদাহরন ব্যবহার করি যারা আমাদের দৈনিক প্রয়োজনীয় কাজগুলোর মধ্যে পড়ে তাহলে কিন্তু আরো সোজা হয়ে যায়। কারন অনেকেই প্রাথমিক অবস্থায় এই বিষয়গুলো বুঝতে একটু সমস্যা হয়।

আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই বই থাকে। ধরুন ঘরে একটি বই রাখার জন্য বুকসেলফ আছে। এবং সেখান ধাপে ধাপে অনেকগুলো বই সাজিয়ে রাখা আছে যা আপনি প্রতিদিন পড়েন। এবং তাছাড়া বই পড়ার জন্য আপনার ঘরে একটি ছোট টেবিল আছে। আর অবশ্যই টেবিল থাকলেতো টেবিলের ড্রয়ার থাকবেই।

 এবার আসি মূল পয়েন্ট। সবেমাত্র ভোর হয়েছে। এখন আপনিই চিন্তা ভাবনা করতেছেন সকালবেলা একটু বই পড়া দরকার। তাই আপনি বই পড়ার জন্য বুকসেলফ থেকে একটি বই নিয়ে টেবিলে পড়তে বসেন। বইপড়ার এক পর্যায়ে এখন আর বই পড়তে মন চাচ্ছে না অথবা বই পড়া শেষ এমত অবস্থায় আপনি বইটি টেবিলের ড্রয়ারে রেখে দেন। এভাবে প্রতিদিন পড়ার পর যখন বইটি পড়া পুরোপুরি শেষ হয়ে যাবে তখন আপনি এই বইটিকে আবার বুকশেলফে রেখে দেন।

এখন ধরুন এমন কতগুলো বই অবশ্যই থাকে যেগুলো কিনা আমাদের প্রতিদিন পড়ার দরকার হয়। একটি উদাহরণ দিলে বুঝতে পারবেন সেটি হল পাঠ্যবই। কারণ পাঠ্যবই আমরা প্রায় প্রতিদিনই পড়ি। পরীক্ষা শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত। এবার পাঠ্যবইগুলো যখন আপনি প্রতিদিন পড়বেন তখন কি আপনি এই বইগুলো প্রতিদিন বুকসেলফ থেকে নিয়ে এসে টেবিলে পড়ে আবার কি বুকসেলফ রেখে দিবেন। কখনোই না। এই বইগুলো পড়া শেষে আপনি সুন্দর করে আপনার টেবিলে অথবা টেবিলের ড্রয়ারে রেখে দিবেন। আমাদের তাই কিন্তু হয়।

এতক্ষন ধরে যে বকবক করে একটি উদাহরণ দিচ্ছি বাস্তব জীবন থেকে এই ঘটনাটি কিন্তু ক্যাশ সার্ভার বোঝাতে কাজে লাগবে কারণ পুরোপুরি ক্যাশ সার্ভার যেভাবে কাজ করে ঠিক বই পড়ার গল্পটি একই রকম বোঝায়।

এখন বই পড়া শেষ করে আপনি চিন্তা করলেন যে ইউটিউবে একটি ভিডিও দেখা যাক। তো আপনি ইউটিউবে ঢোকার পর যে ভিডিওটি সামনে আসলো ওই ভিডিওতে ঠিক করলেন যে দেখবেন। তো সচরাচর ভিডিও তে ক্লিক করে দিলেন ভিডিওটি প্লে করার জন্য। ঠিক এই মূহুর্তে আসলে কি ঘটবে। ভিডিওটির ডাটা কোন একটি সার্ভার থেকে আপনার মোবাইলে ট্রান্সফার হবে। তো এই ভিডিওটি যে সার্ভারে থাকে এ সকল সার্ভারগুলো মূলত আমেরিকা থাকে। আমেরিকা থেকে ভিডিওটির ডাটা আপনার মোবাইলে আসে। 

এখন যদি আমরা বুকসেলফ টাকে ডাটা সেন্টার হিসেবে ধরি এবং টেবিল থেকে যদি আপনার ইন্টারনেটের স্পিড ধরি তাহলে এই দাঁড়ায় যে আপনি যতবার বই পড়বে ততোবারই বুকসেলফ থেকে বইগুলো নিয়ে আসবেন। অর্থাৎ আপনি যতবার ভিডিও দেখবেন ততোবারই ওই ভিডিওগুলো আমেরিকা ডাটা সেন্টার থেকে বাংলাদেশে আসবে। 

এখন একটু চিন্তা করুন প্রতিবার ভিডিও দেখার জন্য যদি আমেরিকা থেকে ভিডিও ডাটা গুলো আসে তাহলে আপনার কতটুকু ব্যান্ডউইথ খরচ হচ্ছে। বা প্রতিবাদ বই পড়ার জন্য আপনি বুকসেলফ থেকে যদি বই নিয়ে আসে তাহলে কি রকম কষ্ট হচ্ছে। আসলে মূল ব্যাপারটা এরকমই।

এখন আপনার টেবিলে একটি ড্রয়ার আছে। নিশ্চয়ই এ ব্যাপারটিই আপনার খেয়াল আছে। আপনার টেবিলে যদি প্রয়োজনীয় বই গুলো রেখে দিতে পারেন তাহলে নিশ্চয়ই আর বুকশেলফে যাওয়া লাগলো না। ব্যাপারটি নিশ্চিত ধরতে পেরেছেন। 

অর্থাৎ আপনি যে কোম্পানির ইন্টারনেট ব্যবহার করতে চান তারা যদি এরকম সার্ভার তৈরি করে যেগুলো আমেরিকা থেকে বাংলাদেশে একবার আসার পর বাংলাদেশের সার্ভারে ডাটা গুলো সেভ থাকবে। এবং বাংলাদেশ থেকে যদি কেউ এই ভিডিওগুলো দেখতে চায় তখন এসব ভিডিওগুলো আমেরিকা থেকে না এসে বাংলাদেশের কোন একটা সার্ভার থেকে দেখাবে। আর এটাই মূলত ক্যাশ সার্ভার বলা হয়।

অর্থাৎ ভিডিওর কেশগুলোও একটি সার্ভারে জমা থাকবে। যেখান থেকে প্রতিবার সবাইকে ভিডিও গুলো দেখানো হবে। বারবার মেন সার্ভারে যাওয়া লাগবে না। আবার সার্ভারগুলো এরকম করেই সেটিংস করা হয় যেন ভিডিওতে কোন পরিবর্তন ঘটে ক্যাশ সার্ভারে যেন পরিবর্তন ঘটে। 

আর তাই মূলত এসব বড় বড় কোম্পানিগুলো বিভিন্ন দেশে দেশে সার্ভার বানিয়েছে যেন সেখানকার মানুষ জন প্রথমবার ভিডিও গুলো দেখার পর ওই ভিডিওগুলো স্টোর করে রাখে এবং তৎপরবর্তী সময়ে সেখানকার মানুষ একই সার্ভার থেকে ডাটা গুলো আবার চাইলে যেন খুব সহজে এবং দ্রুত পায়ে। ক্যাশ সার্ভার মূলত একটি ডেডিকেটেড নেটওয়ার্ক সার্ভার যা অন্যান্য ফাইলগুলোকে ক্যাশ বা স্টোর করে। 

ক্যাশ সার্ভার না থাকলে কি হবে

আসলে ক্যাশ সার্ভার যদি না থাকে তাহলে আপনাকে বারবার ডাটা পাওয়ার জন্য মেইল সার্ভার হানা দেওয়া লাগবে। আর এতে আপনার প্রচুর পরিমানের ব্যান্ডউইথ দরকার হবে। যখন আপনি ক্যাশ সার্ভার থেকে ভিডিও গুলো দেখবেন বা ডাটা গুলো দেখবেন তখন আপনাকে মাত্র 5mb পার সেকেন্ডে যে ভিডিও দেখা যেত সার্ভার ছাড়া ওই একই ভিডিও দেখতে আপনাকে দরকার হবে ১০ সেকেন্ডের ব্যান্ডউইথ। এবং এত দূরের পথ পার করে যখন ভিডিও গুলো আসবে তখন নিশ্চয়ই বাফারিং অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

বিডিপপুলারে আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা বিডিপপুলারে পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Leave a Comment